আড়াই বছর অনৈতিক সম্পর্ক : বিয়ের প্রলোভন

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ঘটনায় অভিযুক্তকে আটক করেছে গজারিয়া থানা পুলিশ।

অভিযোগপত্রে ঘটনার বিবরণ থেকে জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের ওই তরুণীর সঙ্গে একই গ্রামের সুমন সরকারের (২৬) আড়াই বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। সুমন মেয়েটিকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। সর্বশেষ ৪ জানুয়ারি রাতে মেয়েটিকে পুনরায় ধর্ষণ করে সুমন। এ সময় মেয়ের মামা সুমনকে হাতেনাতে ধরে ফেলে। সুমন সকাল হলে মেয়েটিকে বিয়ে করবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু পরে সে নানা টালবাহানা শুরু করে। বাধ্য হয়ে ঘটনাটি গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানালে ১০ জানুয়ারি তাদের বিয়ের দিন ধার্য করা হয়। তবে ওই দিন সুমন বিয়ে না করে এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোককে হাত করে বিয়ের জন্য পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। অন্যথায় মেয়ের পরিবারকে সপরিবারে গ্রাম ছাড়ার হুমকি দেয়। বাধ্য হয়ে রবিবার রাতে থানায় ধর্ষণ মামলা করেন ভুক্তভোগী।

মামলা দায়েরের পর পুলিশ সোমবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার ভাসারচর গ্রামে অভিযান চালিয়ে সুমনকে গ্রেপ্তার করে। অভিযানের নেতৃত্ব দেন গজারিয়া থানার এসআই দিদারুল আলম খান।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে গজারিয়া থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মো. হেদায়েত উল ভূঁইয়া জানান, মেয়েটি বাদী হয়ে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্তকে আটক করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

দ্য রিপোর্ট

Comments are closed.