টঙ্গীবাড়ীতে কাঠ ব্যবসায়ীকে হত্যার হুমকি মামলা

টঙ্গীবাড়ী উপজেলার দিঘীরপাড় বাজারের কাঠ ব্যবসায়ী আ.মান্নান দেওয়ানকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনায় ওই ব্যাবসায়ী থানায় বাদী হয়ে উপজেলার বেশনাল ও কামারখাড়া গ্রামের আল আমিন মৃধা, আলমগীর সৈয়াল, আল আমিন সৈয়াল ও ইসমাইল সৈয়ালের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন যাহারনং-৬১১।

মামলার বাদী মান্নান দেওয়ান জানান ৪/৮/২০১৪ইং তারিখে আমার ছেলে রানা সফিউল্লাহ কলেজের মেধাবী ছাত্র আ.ছাত্তারকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে ঐ বিবাদীরা। তাদেরকে আসামী করে থানায় ২(১১)১৪ধারা ৩০২/৩৪দ:বি: দায়ের মামলা করা হলে আসামী আল আমিনকে গ্রেফতার করে। পরে বিবাদীরা উচ্চ আদালত থেকে জামিনে এসে প্রকাশে ও মোবাইলে হুমকি দিয়ে আসছে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য । তিনি আরও জানান ১৩ই সেপ্টোম্বর বিকাল ৩টায় উপজেলার বেশনাল কবর স্থানে পাশে উক্ত মামলার আসামীরা পথ গতিরোধ করে হুমকি দেয় মামলা তুলে নেওয়ার জন্য।

একটি মহল হত্যা মামলাটি প্রশাসনের সাথে যোগসাজ করে অন্য খাতে নেওয়ার জন্য অপচেষ্টা চালাচ্ছে। যে কোন সময় ওই আসামিরা আমাকে ও আমার পরিবারদের বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে বলে তিনি জানান। সম্প্রতি কিছু দিন পূর্বে ৬৭পিচ ইয়াবা টেবলেট সহ দিঘীরপাড় বাজার থেকে মুন্সিগঞ্জ ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করে আলমগীর সৈয়ালকে। এর জের ধরে আলমগীর সৈয়ালের আত্মীয়রা দিঘীরপাড় বাজারে মান্নান দেওয়ানের কাঠের দোকান ও তার ভাই ভান্ডারী কাঠের দোকান তালা ঝুলিয়ে দেয়।

পরে উপজেলা আ.লীগ সভাপতি জগলুর হালদার ভূতু ঐ দোকান ঘরের তালা খুলে দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে ব্যবসা করার আশ্বাস দেন। এর কিছু দিন পর মামলার বাদী মান্নান দেওয়ানকে পরিকল্পিত ভাবে তার গাড়ির মধ্যে ইয়াবা রেখে ফাঁসানোর চেষ্টা করে ঐ হত্যা মামলার বিবাদীরা এবং ইয়াবা ব্যবসা করে বলে এলাকায় অপপ্রচার করে যা বিত্তিহীন। এলাকাবাসী জানান আলমগীর সৈয়াল বিভিন্ন ধরনের মাদক সেবন ও ব্যবসা করে আসছে যার কারনে যুবসমাজ ধংসের পথে। ওই হত্যা মামলা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আসামী পক্ষ বিভিন্ন ভবে হয়রানি করছে। এই ব্যপারে থানায় অভিযোগ করার প্রস্তুতি চলছে।

বিক্রমপুর চিত্র

Comments are closed.