সিরাজদিখানে সৎ ভাবীর লোহার খুন্তির ছ্যাকা থানায় মামলা, আটক ১

কে. এন. ইসলাম বাবুল: সিরাজদিখানে মেয়েকে লাঠিদিয়ে খোচা দেয়ার অপরাধে সৎভাবীর লোহার খুন্তির ছ্যাকা ও আচড়া দিয়ে শিশু শিপনকে জখম করার ঘটনায় এলাকায় জনমনে ক্ষোবের সৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবার বিকালে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের শিকার হয়েছে সিরাজদিখান উপজেলার ইছাপুরা ইউনিয়নের চন্দনধূল গ্রামের লতিব শেখের ছেলে শিপন শেখ (০৬)। শিপন চন্দনধূল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্র। এ ঘটনায় শিপনের মা হেলেনা বাদী হয়ে সৎ ছেলে বউ ঝর্না বেগমকে আসামী করে গতকাল শনিবার সিরাজদিখান থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করলে পুলিশ ঝর্ণা বেগমকে আটক করেছে।

জানাযায়, সিরাজদিখান উপজেলায় চন্দধূল গ্রামের লতিব শেখের প্রথম পক্ষের সন্তান কুয়েত প্রবাসী ইসলাম শেখের স্ত্রী ঝর্ণা বেগম। ঝর্ণা দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী (ছোট শাশুরী) হেলেনার সন্তান শিপনের উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন প্রায়ই করে আসছে। এক পর্যায়ে অত্যাচারের মাত্রা আরো বেড়ে যায়। ঝর্নার মেয়ে ঈশিতার সাথে খেলাতে গিয়ে শিপনের ঝগড়া হয়। শিশুদের এই ঝগড়াকে কেন্দ্র করে ঝর্ণা বেগম রাগান্বিত হয়ে সৎ দেবর শিপনের দুই গালে ও কানে গরম লোহার খুন্তির দিয়ে ছ্যাকা ও আচড়া দিয়ে আঘাত করে জখম করে।

ইছাপুরা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড সদস্য নবী হোসেন বলেন ঝর্ণা নামে ওই মহিলা অনেক পাজী আমারা সামাজিক ভাবে এ ঘটনার নিন্দা জানাই। শিপনের মা হেলেনা বেগম বলেন, আমার স্বামী ছেলের বঊয়ের অত্যাচারের প্রতিবাদ করতে সাহস পায় না। ওদের টাকা পয়সা থাকায় ওদের বিরুদ্ধে কোন লোক মুখ খুলে না। আমরা ওদের বিচার চাই। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ঝর্না বেগম সাংবাদিকদের সাথে কোন কথা বলেননি।
সিরাজদিখান থানার ওসি (প্রশাসন) মোঃ ইয়ারদৌস হাসান বলেন, এঘটনায় পুলিশ আসামি ঝর্ণাকে গ্রেফতার করেছে। তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের মামলার হয়েছে। মামলা নং ২৭, তারিখ ২১/১১/১৫।

এফএনএস

Comments are closed.