খাজনা না নেওয়ায় কৃষি ঋণ না পেয়ে হতাশায় কৃষক

টঙ্গীবাড়ী উপজেলার হাসাইল, দিঘিরপাড়, পাচঁগাওঁ, কামাড়খাড়া ইউনিয়নের চরাঞ্চলের কৃষকদের খাজনা না নেওয়ায় আলু উৎপাদনের এই মৌসুমে কৃষি ঋণ না পেয়ে চরম হতাশায় দিন কাটছে ওই এলাকার কৃষকদের। ব্যায় বহুল আলু চাষের অর্থ যোগান দিতে তারা এখন হিমশিম খাচ্ছে। মূল ভূখন্ডের কৃষকরা ঋণ পেলেও এ সমস্ত চরাঞ্চলের কৃষকরা ঋণ না পাওয়ায় তাদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। ফলে বৃহস্পতিবার বিকালে দিঘিরপাড়, হাসাইল ইউনিয়নের কয়েকশত কৃষক টঙ্গীবাড়ী উপজেলা পরিষদের মাঠে মানববন্ধণ করেছে।

মানবনন্ধন কর্মসূচীতে এ সময় কৃষকরা অতি বিলম্বে তাদের জমির খাজনা নেওয়ার দাবী জানান। তারা জানায়, খাজনা না নেওয়ায় আমরা কৃষি ঋণ উত্তোলন এবং জমি ক্রয় বিক্রয় করতে পারছিনা। উল্লেখ্য, কয়েক বছরের ভাঙ্গনে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার ওই ৪ ইউনিয়নের প্রায় ৪০হাজার একর জমি পদ্মা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে আবার চর জেগে উঠেছে। কৃষকরা ওই সমস্ত জমিতে পূর্ণদমে কৃসিকাজ শুরু করলেও সরকার এ সমস্ত জমির খাজনা না নেওয়ায় এই মানববন্ধন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়।

দিঘির পাড় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আরিফ হাওলাদার জানান, আমার ইউনিয়নের ৮ হাজার কৃষক তাদের জমির খাজনা দিতে না পারায় তারা কৃষি ঋন পাচ্ছেনা এবং তাদের জমি হস্তান্তরও করতে পারছেনা। না। হাসাইল বানারী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি আনোয়ার হাওলাদার জানান ,এই সরকার জনগনের সরকার ,সর্ব সাধারণের কল্যাণের কথা মাথায় রেখে অতি সত্তর যেন খাজনা নেওয়া শুরু হয় এটাই এই অঞ্চলের কৃসকদের প্রত্যাশা ।

বিক্রমপুর চিত্র

Comments are closed.