ছয় দফা দাবিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের কর্মবিরতি পালন

মোঃ আমিরুল ইসলাম নয়ন: শিক্ষক নেত্রীবৃন্দের ঘোষিত ৬ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সারাদেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর ন্যায় আজ অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করেছেন মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ৮৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা। এ কারণে গতকাল বেশির ভাগ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কোন ক্লাস হয়নি। সীমিত আকারে প্রধান শিক্ষকরা কোন কোন বিদ্যালয়ে ক্লাস নিয়েছেন।

শিক্ষকদের ৬ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে,ঘোষিত অষ্টম জাতীয় বেতন স্কেলে প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকদের বেতন ১১তম গ্রেডে (১২,৫০০ টাকা) পুনর্নির্ধারণ, সরাসরি প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ বন্ধ করে সহকারী শিক্ষক পদ থেকে নিয়োগ দিয়ে যোগ্যতা ও দক্ষতার ভিত্তিতে বিভাগীয় পরীক্ষার মাধ্যমে মহাপরিচালক পদ পযর্ন্ত শতভাগ বিভাগীয় পদোন্নতির সুযোগ প্রদান, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা পরিবর্তন করে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সবার জন্য ন্যূনতম ¯œানাতক ডিগ্রি শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণ, জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ অনুযায়ী শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল ঘোষণা এবং সকল প্রাথমিক বিদ্যালয় অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত চালু, টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড পুনর্বহাল করে দ্রুত পদোন্নতির ব্যবস্থা এবং নন-ভ্যাকেশনাল ডিপার্টমেন্ট হিসেবে ঘোষণা করে প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য অর্জিত ছুটির বিধান প্রণয়ন করা।

এ ব্যপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ওবায়েদুল হক মিঞা জানান,কোন বিদ্যালয়ে ক্লাস হচ্ছে না তার কাছে এমন কোন তথ্য নেই।শিক্ষকদের আন্দোলনের জন্য যাতে বিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ ও কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন ক্ষতিগ্রস্থ না হয় সেদিকে খেয়াল রাখার জন্য শিক্ষকদের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

এদিকে,কর্মবিরতি কর্মসূচি পালনকালে প্রাথমিক শিক্ষকরা প্রধানমন্ত্রীর প্রতি সহকারী শিক্ষকদের ৬ দফা দাবি বাস্তবায়নের অনুরোধ জানিয়ে বলেন, সরকার যদি ১৪ অক্টোবরের মধ্যে দাবি মানার ঘোষণা না দেয় তাহলে ১৫ অক্টোবর ঢাকার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালিত হবে এবং ওই কর্মসূচি থেকে বৃহত্তর আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

এফএনএস

Comments are closed.