মিরকাদিম হাটে জোর করে গরু ঢোকাচ্ছে দুর্বৃত্তরা

ধলেশ্বরী নদীতে মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে জোরপূর্বক সিরাজগঞ্জের মনির মিয়ার ৪৯টি গরু ইজারাদারের লোকজন নিয়ে গেছে মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিম গরুর হাটে। তার মতো একই এলাকার মুকুল মিয়ার ৭টি, বাবুল মিয়ার ৯টি, জহিরুল ইসলামের ১৮টি গরুসহ প্রায় দেড় শতাধিক গরু জোরপূর্বক ট্রলার ভিড়িয়ে নেওয়া হয়েছে একই হাটে। বিষয়টি স্থানীয় থানা পুলিশকে জানিয়েও কোনো লাভ হয়নি সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর এলাকার গরু বেপারীদের। ইজারাদার প্রতিনিধি মিরকাদিম পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু তাহের জানান, গরুর বেপারীকে ফেরত পাঠাতে চাইলেও পরে তারা যায়নি। বর্তমানে মিরকাদিম হাটেই গরু বিক্রির জন্য অবস্থান করছেন তারা।

অন্যদিকে রোববার রাতে মুন্সীগঞ্জ শহরের মোল্লারচর সংলগ্ন ধলেশ্বরী নদীতে ২৫টি গরুবোঝাই একটি ট্রলার ডাকাত দলের কবলে পড়েছিল। চালক সাহাবুদ্দিনের বুদ্ধিমত্তা ও বেপারীদের চিৎকারে ডাকাত দল পালিয়ে গেছে। গতকাল সোমবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ধলেশ্বরী নদীর কোথাও পুলিশের টহল দেখা যায়নি। অরক্ষিত ধলেশ্বরী নদী দিয়ে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন হাটে গরু নিয়ে যাচ্ছেন বেপারীরা।

এদিকে ঈদের আর তিন দিন বাকি থাকায় মুন্সীগঞ্জের পঞ্চসার বিসিক হাট, মুন্সীরহাট, মিরকাদিম হাট, লৌহজংয়ের মাওয়া গরুর হাটসহ ৬টি উপজেলায় স্থাপিত গরুর হাটগুলো জমে উঠেছে। বর্তমানে গরুর হাটগুলোতে ক্রেতার সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত বছরের তুলনায় এবার গরুর মূল্য কমে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। এতে চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন কৃষক ও গরু বেপারীরা।

সমকাল

Comments are closed.