আশঙ্কা: ফেরী ঘাটে ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের দুর্ভোগের আশঙ্কা

রুবেল ইসলাম: আর দু’একদিনের মধ্যেই রাজধানীসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ঘরমুখো মানুষের ঢল নামবে দক্ষিণবঙ্গের ঢাকা মাওয়া মহা সড়কের অন্যতম প্রবেশদ্বার শিমুলিয়া ফেরীঘাটে। তবে পদ্মা পাড়াপাড়ের লক্ষ্যে এবার ঈদে পদ্মার স্রোত ,দীর্ঘ চ্যানেল ও ফেরী স্বল্পতায় এ রুটে ফেরী চলাচল বিঘিœত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। কেননা এরই মধ্যে টানা ২৭ দিন শিমুলিয়া কাওড়াকান্দি রুটে ফেরী চলাচলে ভয়াবহ বিপর্যয় সৃষ্টি হয়।

এ কারণে ঈদকে সামনে রেখে এখনো ফেরী চলাচল পুরোপুরি স্বাভাবিক হয়নি।ফলে ঘরমুখো হাজার হাজার যাত্রী আসন্ন ঈদযাত্রায় দীর্ঘ যানজটের কবলে চরম দুর্ভোগে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে ।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, টানা ২৭দিনের অচলাবস্থা শেষে ১৫ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টা থেকে শিমুলিয়া কাওড়াকান্দি নৌরুটে পুনরায় ফেরী চলাচল শুরু হলেও গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত এরুটে ফেরী চলাচল করছে মাত্র ১২টি। উপরন্তু নৌরুটের লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের আপকাটের ড্রেজিং চ্যানেল দিয়ে এ রুটের ৩টি রো রো, ৩টি ডাম্ব, ৫টি কে টাইপ, একটি মিডিয়াম ফেরীসহ মোট ১২টি ফেরী একমুখী চলাচল করছে।লৌহজং টার্নিংয়ে পদ্মার ¯্রােত ও নতুন করে ডাউনকাটের ড্রেজিং কাজ শুরু হওয়ায় ঝুঁকি এড়াতে কাওড়াকান্দি থেকে শিমুলিয়াগামী ফেরীগুলো চলছিল ড্রেজিং চ্যানেল দিয়ে।অন্যদিকে বিপরীতগামী শিমুলিয়া থেকে কাওড়াকান্দিগামী ফেরীগুলো চলছিল শিমুলিয়া পালেরচর কাওড়াকান্দি দীর্ঘ ৩৩কিলোমিটার ঘুর পথের বিকল্প চ্যানেল দিয়ে।

ফলে দীর্ঘ সময় নিয়ে ফেরী চলাচল করায় ঘাট এলাকায় দেখা দিচ্ছে ফেরী স্বল্পতা। বিআইডব্লিউটিসির মেরিন অফিসার আহমেদ আলী দুপুরে জানান, পর্যায়ক্রমে ফেরী চলাচলের সংখ্যা বাড়ানোর চেষ্টা চালানো হচ্ছে।গতকাল ৩টি ফেরী বাড়িয়ে নৌরুটে মোট ১২টি ফেরী চালানো হচ্ছে।¯্রােত কমে গেলে শিগগিরই বাকী ফেরীগুলো চলাচল শুরু হবে বলে তিনি আরো জানান।

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিসির ডিজিএম (বানিজ্য) এস এম মোঃআশিকুজ্জামান জানান,আগামী দু’একদিনের মধ্যে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসবে।এ সময় নৌরুটে ১৮টি ফেরী চলতে সক্ষম হবে বলে তিনি আরো নিশ্চিত করেন। জেলা পুলিশের সাব কন্ট্রোল রুম চালু:এবার ঈদ যাত্রীদের নিরাপত্তা দিতে ও হয়রানি ঠেকাতে শিমুলিয়া ফেরীঘাটে চালু হয়েছে জেলা পুলিশের সাব কন্ট্রোল রুম ও ওয়াচ টাউয়ার। শুক্রবার দুুপুর থেকে শিমুলিয়া ফেরীঘাট গোলচক্কর এলাকায় এর কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এতে করে ঈদে ঘরমুখো দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যাত্রীরা ঢাকা- মাওয়া মহাসড়ক ও শিমুলিয়া চরজানাজাত নৌরুটে নির্বিঘেœ চলাচল করতে পারবেন বলে জানান লৌহজং থানার ওসি জাকির হোসেন মোল্লা।

অনির্বার নিউজ

Comments are closed.