‘সূর্যসেনা’ সংগঠনের কার্যালয় চুরমার করে দিল পুলিশ!

সুমিত সরকার সুমন: সিরাজদিখানে সূর্যসেনা সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কার্যালয় ভেঙে চুরমার করে দিল পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলার মালখানগর ইউনিয়নের তালতলা বাজারে নিবন্ধিত (মু-০৪০০) সংগঠনের কার্যালয়ে থানা পুলিশের একটি দল, টেবিল, চেয়ার, টেলিভিশন, আলমিরা ভেঙে ফেলেছে এবং সংগঠনের প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র তছনছ করার খবর পাওয়া গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মাগরিবের নামাজ শেষ সন্ধ্যা ৭ টা হবে। দাঙ্গা পুলিশের ৩০/৪০ জনের একটি দল সূর্যসেনা সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কার্যালয়ে প্রবেশ করে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। ১৫/২০ মিনিটে সংগঠনের আসবাব পত্র গুড়িয়ে দেয়। সেখান দিয়ে বাজারে আসা যাওয়া লোকজনকে বেদম মারধর করে। সংগঠনের কার্যালয়ে বসে থাকা বাড়ৈ পাড়া গ্রামের আ. রাজ্জাককে (৩৫) পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে ধরে নিয়ে যায় পুলিশ। এছাড়া আরো আসপাশে দোকানে থাকা ৭/৮ জনকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। শুধু তাই নয় রাস্তা দিয়ে হেটে যাওয়া পথচারীদের সাদা কাগজে জোর করে স্বাক্ষর নেয় পুলিশ। স্বাক্ষর দিতে না চাইলে পিটিয়ে স্বাক্ষর নেওয়া হয় বলে জানান ভুক্ত ভোগীরা।

এলাকাবাসী অনেকেই জানান, মামুন আহম্মেদ ইউরোপের সিটিজেন, মামুষের ভালবাসায় বছরের বেশীর ভাগ সময় বাংলাদেশে থাকেন। এলাকার গরীব দু:খীদের সাহায্য সহযোগীতা করেন। তাছাড়া এবার ইউপি নির্বাচনে দাড়াবেন বলে ঘোষণা দেওয়ার পর থেকেই একটি শক্তিশালী পক্ষ তার বিরুদ্ধে ও তার সাথে সম্পর্ক আছে এমন লোকদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করে যাচ্ছে। বর্তমানে পুলিশকেও লেলিয়ে দিয়েছে তার বিরুদ্ধে। পুলিশ যদি সন্ত্রাসী ভুমিকায় থাকে তবে সাধারণ মানুষ কোথায় যাবে।

মামুন আহম্মেদ জানান, আগামী ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করার পর থেকে একটি শক্তিশালী পক্ষ ও রাজনৈতিক কিছু নেতা আমার বিরুদ্ধে উঠে পরে লেগে আছেন। আমাদের এই সংগঠনটি একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান। আমরা শিক্ষা ক্ষেত্রে ছাত্রছাত্রীদের বই, নগদ অর্থ, অসহায় রোগীদের চিকিৎসায় আর্থিক সাহায্য, খেলাধুলা ও সংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সহযোগীতা করাসহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে সহযোগীতা করে আসছি। আমাকে হেয় করার জন্য আমার বিরুদ্ধে একটি মহল পুলিশ বাহিনীদিয়ে সাজানো নাটক বানিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়ার চেষ্টা করছে।

গতকাল সন্ধায় ক্লাবে কোন লোক ছিলনা পাশের গ্রামের রাজ্জাক নামের একটি ছেলে বসেছিল তাকে পুলিশ পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে ধরে নিয়ে যায়। যাওয়ার সময় বলে যায় মামুনকে পেলে গুলি করে ওর বুকটা ঝাঝড়া করে দিতাম। সন্ত্রাসীর ভুমিকা পালন করছে পুলিশ। এমন কর্মকান্ডের জন্য আমি তাদের ঘৃণা জানাই।

সিরাজদিখান থানার ওসি (প্রশাসন) মো. ইয়ারদৌস হাসান জানান, সংগঠনের নামে মাদক ব্যবসা। তাই মাদক ব্যবসার আস্তানা ভেঙে দিয়েছি এবং ইয়াবা ও একটি রামদা উদ্ধার করেছি। মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

বিডিলাইভ
======================

সিরাজদিখানে ‘সূর্য সেনা’ ক্লাব গুড়িয়ে দিয়েছে পুলিশ : নিরীহদের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা, এলাকায় উত্তেজনা

এলাকার আধিপত্য বিস্তার, আগামী ইউপি নির্বাচন ও জায়গা দখলকে কেন্দ্র করে সিরাজদিখানের ‘সূর্যসেনা’ নামে একটি নিবন্ধিত (মু-০৪০০) সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কার্যালয় গুড়িয়ে দিয়েছে পুলিশ। মাদকের আড্ডাখানার অভিযোগে সোমবার রাত ৮টার দিকে সিরাজদিখান থানা মালখনাগর ইউপির তালতলা বাজারে অবস্থিত এ সংগঠনটির কার্যালয় ভেঙে গুড়িয়ে দেয় একদল দাঙ্গা পুলিশ। ক্লাবে থাকা টেবিল, চেয়ার, টেলিভিশন, আলমারি ভেঙে সংগঠনের প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র তছনছ করে পুলিশ। এ সময় মাদক বিক্রির অভিযোগে আব্দুল রাজ্জাক (৩২) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রাজ্জাক বারৈপাড়া গ্রামের মৃত তাইজদ্দিন মাদবরের পুত্র। এ ঘটনায় এলাকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। পুলিশের গ্রেপ্তারের ভয়ে ভুক্তভোগী ও তাদের স্বজনরা এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে।
এদিকে, এ ঘটনায় ক্লাবের সভাপতি স্পেন প্রবাসী মামুন আহম্মেদ, আব্দুর রাজ্জাকসহ ৬ জনকে আসামি করে সোমবার রাতেই সিরাজদিখান থানায় পুলিশ মামলা দায়ের করেছে। এদের মধ্যে অবৈধভাবে জায়গা দখল করে ঘর নির্মাণ করার অভিযোগে স্থানীয় নুরুন্নাহার বেগম ৬ জনকে আসামি করে একটি এবং অস্ত্র ও মাদক আইনে অপর দুটি মামলায় ৫ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন সিরাজদিখান থানার এসআই সুব্রত দেবনাথ।

ওদিকে, সিরাজদিখান থানার ওসি ইয়ারদৌস হাসান দীর্ঘবছর ধরে মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন থানায় কর্মরত থাকায় তার বিরুদ্ধেও রয়েছে নানা অভিযোগ।

এলাকাবাসী ও ক্লাব সভাপতির অভিযোগ, আগামী ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে সিরাজদিখান উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিউদ্দিন আহম্মেদের নির্দেশে পুলিশ অবৈধভাবে রেজিস্ট্রেশনকৃত ক্লাবটি ভাঙচুর ও তছনছ করে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে। পরে একজনকে গ্রেপ্তার করে তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে। ক্লাব থেকে অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধারের নাটক সাজানো হয়েছে। এগুলো সিরাজদিখান থানার ওসি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহম্মেদের কাজ।
এদিকে, ক্লাব সভাপতি ও আওয়ামী লীগ কর্মী মামুন আহম্মেদ উপজেলার চেয়ারম্যানের আপন ভাতিজা। আগামী নির্বাচনে মামুন মালখানগর ইউপির চেয়ারম্যান প্রার্থী। বর্তমানে এ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন উপজেলা চেয়ারম্যানের স্ত্রী সানজিদা বেগম জোৎ¯œা।

সিরাজদিখান থানার ওসি ইয়ারদৌস হাসান জানান, সূর্যসেনা ক্লাবে দীর্ঘ দিন যাবত মাদকের আড্ডা বসছিল বলে পুলিশের কাছে তথ্য ছিল। ওই ক্লাবে নানা রকম অবৈধ কর্মকান্ড ও মানুষকে আটক করে চাঁদা দাবি করে মারধর করতো। সোমবার রাতে ক্লাবটিতে অভিযান চালিয়ে গুড়িয়ে দেয়া হয়। এসময় ক্লাবের ভেতর থেকে তিনটি রামদা, একটি ছোড়া, ১৭০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। ইয়াবা বিক্রির অপরাধে আব্দুল রাজ্জাককে গ্রেপ্তার করা হয়। তার ও পুলিশের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সত্য নয় বলে তিনি জানান।

মামুন আহম্মেদ জানান, আমি ১৮-১৯ বছর ধরে েেস্পনে বসবাস করি। সেখানে আমার ব্যবসা ও ৩টি বাড়ি রয়েছে। আমি কেন মাদক ব্যবসা করতে যাবো। আগামী ইউপি নির্বাচনে মালখানগর ইউপির চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করার পর থেকে একটি শক্তিশালী পক্ষ ও রাজনৈতিক কিছু নেতা আমার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগে আছেন। আমাদের এই সংগঠনটি একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান। আমরা শিক্ষা ক্ষেত্রে ছাত্রছাত্রীদের বই, নগদ অর্থ, অসহায় রোগীদের চিকিৎসায় আর্থিক সাহায্য, খেলাধুলা ও সংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সহযোগিতাসহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে সহযোগীতা করে আসছি। আমাকে হেয় করার জন্য আমার বিরুদ্ধে একটি মহল পুলিশ দিয়ে সাজানো নাটক বানিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করেছে।

এলাকাবাসী জানান, তালতলা বাজার সংলগ্ন মামুন পক্ষের কানন-মাজেদা গং নিজেদের জায়গায় ঘর নির্মাণ করতে গেলে সোমবার সন্ধ্যায় পুলিশ গিয়ে বাঁধা দেয়। এ সময় পুলিশ নারীদের শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করে। খবর পেয়ে মামুন আহম্মেদ ক্লাব থেকে ঘটনাস্থলে গেলে পুলিশের সঙ্গে তর্কবিতর্কের পর ক্লাবে এসে পুলিশ ভাঙচুর চালিয়ে ক্লাবটি গুড়িয়ে দেয়। এ সময় ক্লাবে বসে থাকা বাড়ৈপাড়া আব্দুর রাজ্জাককে পিটিয়ে আহত করে পুলিশ থানায় নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে সিরাজদিখান উপজেলা চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন আহম্মেদ জানান, মামুন আমার আপন ভাতিজা। এই বলে তার কোন অবৈধ কর্মকান্ডকে প্রশ্রয় দিতে পারি না। মামুন স্পেনের নাগরিক। দেশে এসে চাঁদাবাজি, মারামারি, ইয়াবা-মদের ব্যবসা শুরু করেছে। সোমবার পুলিশের উপর হামলা চালানো হলে পুলিশ তাদের দায়িত্ব পালন করেছে। ও চেয়ারম্যান পদে ইলেকশন করলে চাইলে আমি বাঁধা দেবো কেন। আর আমার স্ত্রীও এবার নির্বাচন করবে না। তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা-বানোয়াট বলে তিনি দাবি করেন।

রামপাল নিউজ

Comments are closed.