নিমতলা বাস স্ট্যাান্ডে ২ নারী পাচারকারী গ্রেপ্তার : ১ নারী উদ্বার

মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদীখানে দুই নারী পাচারকারীকে গ্রেপ্তার ও এক যুবতীকে উদ্বার করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিক্তিতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের নিমতলা বাস স্ট্যাান্ডে অভিযান চালিয়ে জাহানারা বেগম(৪০) ও নিপা বেগম (৩৩) কে গ্রেপ্তার করে। পিংকি আক্তার নামে এক যুবতীকে উদ্বার করা হয়েছে।

সিরাজদিখান থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দিনাজপুর জেলার কোতয়ালী থানার তাজপুর দিঘীপাড়া গ্রামের হযরত আলীর মেয়ে পিংকী আক্তার(১৯)কে চাকুরীর প্রলোভন দিয়ে পদ্মার ওপার বরিশাল নিয়ে যাচ্ছিল। পাচার হওয়ার কথা গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পেরে ঢাকা-মাওয়া মহসড়কের নিমতলায় তাদের বাস আটকিয়ে জিজ্ঞাসা বাদ করলে পাচার কারী দুই মহিলার কথাবার্ত অসংলগ্নতায় তাদের গ্রেপ্তার করলে এ সময় পাচার হওয়া পিংকী আক্তার কে উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধার হওয়া পিংকী আক্তার বলেন, আমার বাড়ি দিনাজপুর জেলার কোতয়ালী থানার তাজপুর দিঘীপাড়া গ্রামে। আমার স্বামী সামিউল গাজীপুর চৌরাস্তা লায়লা ফ্যাসন র্গামেন্টসে চাকুরী করে আমিও কিছুদিন যাবত ওই গার্মেন্টেসে কাজে যোগ দিয়েছি। আমরা ঢাকার সায়েদাবাদে বাসা ভাড়া করে থাকি। আমার স্বামীর সাথে ঝগড়া করে কাদতে কাদতে বাসার বাইরে আসলে জাহানারা বেগম আমার সাথে কথা বলে চাকুরাীর দেওয়ার কথা বলে মঙ্গলবার সকালে ঢাকার যাত্রাবাড়ির এক বাসায় নিয়ে যায়। ওই বাসায় এক মহিলার কাছে আমাকে রেখে সে চলে আসে।

পরের দিন বুধবার নিপা নামে আরেক মহিলাকে নিয়ে এসে আমাকে বাসে করে নিয়ে যেতে চাইলে তারা বলে যেখানে চাকুরী হয়েছে সেখানে যেতে হবে। আমাকে পুলিশে ধরার পরে বুঝতে পারলাম ওরা দুজন আমাকে চল্লিশ হাজার টাকায় কোন দালালের কাছে বিক্রি করেছে।

এ ব্যাপারে জাহানারা ও নিপা পাচারের ও বিক্রির কথা অস্বীকার করে বলে,ওকে চাকুরী দেযার জন্য বরিশাল নিয়ে যাচ্ছিলাম, বিক্রির জন্য নয়।

এব্যাপারে সিরাজদীখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ ইয়ারদৌস হাসান ঘটনার সততা নিশ্চিত করে বলেন, আটক জাহানারা ও নিপার বিরুদ্ধে নারী পাচার আইনে মামলা হয়েছে ।

বাংলাপোষ্ট

Comments are closed.