বঙ্গবন্ধুর স্মরণে মুন্সীগঞ্জে ৬ লাখ গাছ লাগাবে শিশুরা

মুন্সীগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর স্মরণে জেলার শিশু শিক্ষার্থীরা এক যোগে ছয় লাখ গাছের চারা রোপন করবে বৃহস্পতিবার। বিপুল সংখ্যাক এই চারা সংগ্রহে এখন ব্যস্ত এখানকার প্রশাসন ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। জেলার প্রায় তিন লাখ শিক্ষার্থী দু’টি করে গাছ রোপন করবে এবং নিজ দায়িত্বে তা পরিচর্যা করবে। গত বছর ১৪ আগস্ট একযোগে একটি করে গাছ রোপন করেছিল শিশুরা। এর অধিকাংশই এখন বেড়ে উঠছে। তাই এবার দু’টি করে গাছ রোপনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। জেলা প্রশাসক ফাইন্ডেশনের উদ্যোগে সকাল সাড়ে ১০ টায় কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে এর উদ্বোধন করবেন। একই সময়ে জেলার ৬টি উপজেলার ৭৭৩ টি বিদ্যালয়ে গাছের চারা বিতরণ করা হবে।

তাই গাছের চারা সংগ্রহে সভ্যতার জনপদ মুন্সীগঞ্জে চলছে এখন বিশাল কর্মযজ্ঞ। জেলার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই তৎপর চারা সংগ্রহে। জেলার বিভিন্ন নার্সারী বনবিভাগ এমনকি জেলার বাইরের রংপুর, গাজীপুরসহ বিভিন্ন স্থান থেকেও সংগ্রহ করছে এই চারা। পঞ্চসারের আরতি নার্সারীতে গিয়ে দেখা যায় চারা প্রায় শেষ। তাই তারা রংপুর থেকে ১০ হাজার গাছের চারা ক্রয় করে ট্রাক ভরে নিসে আসছে। আর শহরের এভিজেএম সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ১ হাজার ৭ শিক্ষার্থীর জন্য গাজীপুর থেকে ৩ হাজার ৩ শ’ হাজার গাছের চারা আনা হচ্ছে বলে জানালেন বিদ্যালয়টির শিক্ষক তৌফিক হাসান।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে আয়োজিত এই বৃক্ষ রোপোনোৎসবে ব্যস্ত জেলাবাসী। বৃক্ষরোপনের এই সুযোগ শিশুটিকে করবে দায়িত্ববান এবং যতœশীল। বাড়িতে নিজের হাতে লাগানো গাছটির বেড়ে উঠা, যতœ, গাছের প্রতি ভালোবাসা তার চরিত্রকে করবে দৃঢ়। তাই মনে করছেন এখানকার সুশীল সমাজ।
জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আনিস-উজ-জামান, নদী বেষ্টিত জেলাটিতে নেই প্রয়োজনীয় বনায়ন। বৃক্ষরোপন এই অভাব মেটানোর পাশাপাশ পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা, দেশ প্রেম, ধর্মীয় মূল্যবোধ,অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ আবদান রাখবে।

কর্মসূচীর উদ্যোক্তা এবং জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল জানান, এতে শিশুদের পরিবেশের সাথে একাত্ত্বতা, জাতির পিতার প্রতি সম্মান সার্বোপরি দেশপ্রেমিক পরিবেশ বান্ধব নাগরিক সৃষ্টিসহ নানা বিষয় জড়িয়ে রয়েছে এই কর্মসূচীর পেছনে। গোটা দেশ ব্যাপী এই কর্মসূচী গ্রহণ করা গেলে শিশুদের মানসিক পরিবর্তনের পাশাপাশি বনায়নেও বিপ্লব ঘটবে।

“নতুন প্রজন্মের হাতে আগামীর বাংলাদেশ” স্লোগানে আয়োজিত এই কর্মসূচী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সবুজ-শ্যামল সোনার বাংলাদেশ গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এই প্রত্যাশা ব্যক্ত করে শিক্ষাবীদ অধ্যাপক সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জী বলেন, আগামী প্রজন্মকে মুক্তিযদ্ধের চেতনা এবং দেশপ্রেম ও পরিবেশ সচেতন করা জরুরি। তাই জেলা প্রশাসক ফাউন্ডেশনের এই কর্মসূচী কার্যকর ভূমিকা রাখবে। মুন্সীগঞ্জ পিপিইএম রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজের অধ্যক্ষ মেজর রেজাউল করিম বলেন, এই কর্মসূচী জাতি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। গাছ এবং প্রকৃতির প্রতি মানুষের মমত্ববোধ বাড়বে।

জনকন্ঠ

Comments are closed.