৩ বছরের মধ্যে তৈরি পোশাক শিল্প পার্কের কাজ সম্পন্ন করা হবে

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপি আজ ঘোষণা দিয়েছেন যে, মুন্সিগঞ্জে দেশের বৃহত্তম তৈরি পোশাক (আরএমজি) শিল্প পার্ক স্থাপন করা হচ্ছে এবং আগামী তিন বছর মধ্যে এর কাজ সম্পন্ন হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। এছাড়াও আগামীতে একই ধরনের শিল্প পার্ক চট্টগ্রামেও স্থাপন করা হবে।

তিনি বলেন, মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়ায় ২ দশমিক ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যায়ে একটি তৈরি পোশাক শিল্প পার্ক স্থাপনের জন্য বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্ততকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) এবং চীনের ওরিয়েন্ট ইন্টারন্যাশনাল হোল্ডিং কোম্পানির ইতিমধ্যে সমঝোতা স্মারক(এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়েছে।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘… প্রকল্প আগামী তিন বছরের মধ্যে সম্পন্ন করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। অনুরূপ শিল্প পার্ক চট্টগ্রাম জেলার মিরসরাই এবং আনোয়ারা উপজেলায় স্থাপন করা হবে।’

আজ দুপুরে চট্টগ্রামে সমুদ্রের পাড়ে হোটেলে রেডিসন ব্লু’র মিলনায়তনে তিন দিনব্যাপী ‘বাসেক্সপো-২০১৫’ উদ্বোধনকালে মন্ত্রী এ ঘোষণা দেন।
বিজিএমইএ এই তৈরি পোশাক প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আগে সারা বিশ্বে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ।

প্রধান অতিথি হিসেবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দানকালে বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন সমস্যা ও প্রতিকূলতা সত্ত্বেও বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাত ভালোভাবে টিকে আছে। যা নিরাপত্তা ও সংস্কারের ক্ষেত্রে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। অন্যান্য দেশের কাছেও এটি একটি রোল মডেল হতে পারে।

তিনি জানান, বিদেশী এবং স্থানীয় বিশেষজ্ঞগণ পরীক্ষা করে আমাদের ৩০৮১টি কারখানার মধ্যে ৩০৪৭টি কারখানাকে নিরাপদ বলে স্বীকৃতি দিয়েছেন। শুধুমাত্র ৩৪টি কারখানা এখনো ঝুঁকি প্রবন।

তিনি বলেন, গত এপ্রিল বার্লিনে অনুষ্ঠিত জি-৭ মাল্টি স্টেকহোল্ডার সম্মেলনে বাংলাদেশে তৈরি পোশাক শিল্পের নিরাপত্তা অর্জনে অগ্রগতির প্রশংসা করা হয়েছে।
রানা প্লাজা ধস একটি দু:খজনক ঘটনা এবং একে দুর্ঘটনা হিসাবে আখ্যায়িত করে মন্ত্রী বলেন, রানা প্লাাজা বাংলাদেশের পোশাক খাতের বাস্তব চিত্র ছিল না।
রানা প্লাজা ধসের পর নিরাপত্তার প্রশ্নে সরকার ‘জিরো টলারেন্সে’ আছে। এই দু:খজনক ঘটনা ঘটার পর যখন অন্যন্য তৈরি পোশাক শিল্প সতর্ক হয়েছে এবং আমাদের তৈরি পোশাক কারখানা কর্তৃক গৃহীত নিরাপত্তা ব্যবস্থা উপর ইউএসএআইডি এবং ইউকেএআইডি সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে তারপরও যুক্তরাষ্ট্রে আমাদের জিএসপি সুবিধা পুনর্বহাল না করাটা দু:খজনক।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের বিভিন্ন অগ্রগতির মধ্যে তৈরি পোশাক শিল্পের সাফল্যের মধ্যে রয়েছে এই খাতে কোনো শিশুশ্রম নেই। তৈরি পোশাক শিল্পের কোনো কারখানায় একজনও শিশু শ্রমিক নেই।

তিনি বলেন, আমরা ইতিমধ্যে একটি নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশের অবস্থান অর্জন করেছি এবং আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী তিন বছরের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের অবস্থানে নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কাজ করছেন।

বাংলাদেশকে ‘বীরের দেশ’ হিসেবে অভিহিত করে তিনি আশা প্রকাশ করেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আগেই বাংলাদেশ সারা বিশ্বে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করবে।

ভাষণদানকালে মেয়র আ জ ম নাসির উদ্দিন চট্টগ্রামের বিভিন্ন কারখানায় গ্যাস সরবরাহ বৃদ্ধির জন্য বিজিএমইএ’র চাহিদা এবং এই প্রশংসনীয় উদ্যোগ অব্যাহত রাখার জন্য বিজিএমইএ প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বিজিএমইএ’র সভাপতি মোহাম্মদ আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত পিয়েরে মায়াদন, মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্সিয়া স্টিফেন্স ব্লম বার্নিকাট ও কানাডিয়ান রাষ্ট্রদূত পিয়েরে লারামি।

এতে দেশ বিদেশের সংশ্লিষ্ট বিপুল সংখ্যক ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

বাসস

Comments are closed.