হামলা: মিরকাদিমে বিয়ে বাড়িতে হামলা-লুট, সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার

মুন্সীগঞ্জে বিয়ে বাড়িতে হামলা ও লুটপাট করার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনার মুল হোতা সন্ত্রাসী কাজী মুকুল হোসেন (৪৮)-কে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। শনিবার বিকেল পৌনে ৪টায় তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। পরে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে শুক্রবার রাতে সদরের মিরকাদিম পৌরসভার দক্ষিণ কাগজীপাড়া থেকে মুকুলকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

মামলার সূত্র মতে, গত ২৯ শে জুলাই দিবাগত রাত দেড়টার দিকে দক্ষিণ কাগজীপাড়া গ্রামের কাজী হুমায়ুন কবিরের বাড়িতে একই এলাকার কাজী মুকুল পূর্ব শক্রুতার জের ধরে হামলা চালায়।

এ সময় মুকুল ও তার সহযোগিরা তার ছোট ভাই কাজী শামীম আহমেদ, ভাইয়ের স্ত্রী হালিমা আক্তার চায়নাসহ পরিবারের ৪ সদস্যকে মারধর ও পিটিয়ে স্বর্ণের গলার হার, চুড়ি, কানের দুল, হাতের চুড়, মাথার টিকলি, হাতের ব্যাচলাইটসহ ২১ ভরি সোনার গহনা ও নগদ ৫০ হাজার টাকা লুটে নেয়।

এ স্বর্ণালঙ্কার ছিল তার মেয়ে সুমাইয়া আক্তার বৃষ্টির বিয়ে উপলক্ষ্যে কেনা। ওইদিন রাতে তার ভাই ও ভাইয়ের পরিবারের সদস্যরা কেনা ওই স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে বাড়িতে আসেন। ৩১ শে জুলাই ছিল তার মেয়ে সুমাইয়া আক্তার বৃষ্টির বিয়ে।

মুকুল গং প্রায় ৮লাখ ৮২ হাজার টাকার সোনার গহনা ও নগদ ৫০ হাজার টাকা লুটে নেয় বলে ভুক্তভোগী কাজী হুমায়ুন কবির জানিয়েছেন।

এদিকে সন্ত্রাসী হামলায় আহত কাজী শামীম আহমেদকে প্রথমে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটননায় কাজী হুমায়ুন কবিরের অপর ছোট ভাই হাজী মো. দুলাল হোসেন কাজী বাদী হয়ে কাজী মুকুল হোসেনকে প্রধান আসামি করে গত ৩০ শে জুলাই মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় মামলা করেছেন।

উল্লেখ্য, ১৯৮৭ সালে চলচিত্রের কৌতুক অভিনেতা নবাব হত্যার মামলার আসামি ছিলেন মুকুল।

বিক্রমপুর সংবাদ

Comments are closed.