মামলা: পিনাক-৬ লঞ্চডুবি, মামলার নেই অগ্রগতি

জেলার মাওয়া লঞ্চঘাটের অদূরে পদ্মা নদীতে তিন শতাধিক যাত্রী নিয়ে ২০১৪ সালের ৪ আগস্ট এমএল পিনাক-৬ ডুবে যায়। এ দুর্ঘটনায় দায়ের করা মামলায় সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে পাঁচজনের। চাঞ্চল্যকর মামলা হিসেবে গণ্য হলেও অন্য জেলার বাসিন্দা হওয়ায় অনেকে সাক্ষ্য দিতে আসেন না।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই হায়দার আলী হলেও বর্তমানে চাকরিস্থল পরিবর্তন হওয়ায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এখন এসআই মো. জাফর।

এসআই আবু জাফর জনান, মামলাটি চাঞ্চল্যকর হিসেবে গণ্য হচ্ছে। পাঁচজনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হচ্ছে। সাক্ষীদের বাসা অন্য জেলায় হওয়ায় অনেকে সাক্ষ্য দিতে আসতে চান না। আমাদের চেষ্টার কমতি নেই।

লঞ্চের মালিক আবু বকর সিদ্দিক, সারেং ও সুকানিসহ ছয়জনকে আসামি করে ৫ আগস্ট লৌহজং থানায় হত্যা মামলা করেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডাব্লিউটিএ) পরিবহন পরিদর্শক জাহাঙ্গীর ভূঁইয়া।

২০১৪ সালের ৪ আগস্ট জেলার লৌহজং উপজেলার মাওয়া ঘাটের কাছে পিনাক-৬ লঞ্চডুবির ঘটনা ঘটে। এ দুর্ঘটনায় ৪৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। ২৮টি স্বজনদের কাছে হস্তান্তর ও ১৫টি ডিএনএ নমুনা সংরক্ষণ করে মাদারীপুরে দাফন করা হয়। আর ৬১ জন ছিল নিখোঁজের তালিকায়।

দ্য রিপোর্ট

Comments are closed.