অবরোধ: ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে তীব্র যানজট

মহাসড়কে অটোরিকশা চলাচলে সরকারী নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদে শনিবার সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন অংশ অবরোধ করেছে মালিক ও চালকরা। ফলে এই মহাসড়কের দু’পাশে সৃষ্টি হয় প্রায় ৭ কি.মি. দীর্ঘ যানজট।

সড়কপথ ও সেতু মন্ত্রণালয় শনিবার থেকে মহাসড়কে অটোরিকশা চলাচলের ওপর এই নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। নিষেধাজ্ঞার জারির পর শনিবার সকাল থেকেই মহাসড়কে চলাচলকারী অটোরিশা ধরপাকড় শুরু করে পুলিশ।

দ্য রিপোর্টের মুন্সীগঞ্জের প্রতিনিধি মহীউদ্দিন সুমন জানান, সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে শনিবার সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বালুকান্দি বাসস্ট্যান্ডের কাছে মহাসড়ক অবরোধ করেন অটোমালিক ও চালকরা। এ সময় দাউদকান্দি, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও ও মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার অটোমালিক ও চালকরা অংশ নেন।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গজারিয়া ভবের চরের হাইওয়ে ইনচার্জ মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম দ্য রিপোর্টকে জানান, অবরোধের ফলে প্রায় ৭ কি.মি. দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়। অবরোধ তুলে নিতে তাদের সাথে আলোচনা হচ্ছে।

অবরোধে অংশ নেওয়া গজরিয়া অটোরিকশা মালিক সমিতির সভাপতি আল-আমীন মাস্টার দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘হঠাৎ করে অটোরিকশা চলাচল বন্ধ করে দিলে আমরা কী খাবো? কী করবো?’

এদিকে, চট্টগ্রামেও শনিবার সকাল থেকে শুরু হয় ব্যাপক ধরপাকড়।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের যানবাহন পরিদর্শক মীর গোলাম ফারুক দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞার কারণে চট্টগ্রাম-ঢাকা, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার এবং চট্টগ্রাম-হাটহাজারী মহাসড়কে প্রায় ৮০ শতাংশ অটোরিকশা চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।’

‘তবে মানবিক দিক বিবেচনায় রোগী ও অন্যান্য জরুরী পরিবহনে নিয়োজিত অটোরিকশাগুলোকে মহাসড়কে চলাচলে বাধা দেওয়া হচ্ছে না,’ যোগ করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ‘যেসব অটোরিকশা নিষেধাজ্ঞা অমান্য করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। বিভিন্ন মহাসড়কে সকাল থেকে বেশ কিছু অটোরিকশা জব্দ করা হয়েছে।’

চট্টগ্রাম জেলায় প্রায় ১৮ হাজার অটোরিকশা চলাচল করছে বলেও জানান তিনি।

সীতাকুণ্ড হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোহাম্মদ ইয়াসিন দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় সকাল থেকে চারটি অটোরিকশা আটক করা হয়েছে। কেউ যাতে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করতে না পারে সেই জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বারৈয়ারহাট, হাদি ফকিরহাট, নিজামপুর, মীরেরশ্বরাই সদর, সীতাকুণ্ড ও ফৌজদারহাটসহ কমপক্ষে দশটি স্থানে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করছে।’

দ্য রিপোর্ট

Comments are closed.