মেয়র পদে মহাজোট থেকে মনোয়নয়ন চান রেনু : মিরকাদিম পৌর নির্বাচন

মিরকাদিম পৌর নির্বাচন
মোহাম্মদ সেলিম: মিরকাদিম পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে মহাজোট থেকে মনোনয়ন চান মো: হোসেন রেনু। সেই সময়ের সি ক্যাটাগরি মিরকাদিম পৌরসভার প্রথম নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়ে ছিলেন মো: হোসেন রেনু। সেই নির্বাচনে রেনু ইতিহাসের সাক্ষ্যবহন করেন। বর্তমানে মিরকাদিম পৌরসভা এ ক্যাটাগরি।

১৯৯১ সালে চারদলীয় জোট বিএনপি সরকার। সেই সময় মুন্সীগঞ্জের প্রভাবশালী মন্ত্রী এম শামসুল ইসলাম। তিনি রিকাবীবাজার ইউনিয়নকে পৌরসভায় রূপ দেয়ার চেষ্টা করেন। সেই সময় এর প্রতিবাদে এখানকার সাধারণ মানুষ গর্জে উঠে।

বুদ্ধিমান এম শামসুল ইসলাম রিকাবীবাজারের পরিবর্তে মিরকাদিম নামে এখানে পৌরসভা ঘোষণা করেন। ইউনিয়ন থেকে পৌরসভায় রূপান্তরের কারণে এখানে একাধিকবার পৌর নির্বাচন বাধাগ্রস্ত হয়। এরপর দীর্ঘ বিরতির পর ২০০১ সালে আবার চারদলীয় বিএনপি রাষ্ট্রের ক্ষমতায় আসে।

এম. শামসুল ইসলাম আবার মন্ত্রী হন। এবার মিরকাদিম পৌরসভার নির্বাচনের আয়োজন চলে। এই নির্বাচনকে সামনে রেখে এরশাদের জাতীয়পার্টি থেকে বিএনপিতে চলে আসেন হাফিজুর রহমান মন্টু মাস্টার। সে এখানে বিএনপি প্রার্থী হিসেবে মন্টু মাস্টার নির্বাচনী লড়াইয়ে মাঠে নামেন। এই নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থী আব্দুল মালেকের মনোনয়ন ঋণ খেলাপির কারণে বাতিল হয়ে যায়। খোলামাঠে রেনু এগিয়ে যায়।

এই সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন মো: হোসেন রেনু। মন্টু মাস্টারের সাথে রেনুর নির্বাচনী লড়াইয়ে রেনুর জয়লাভ হয়। এরপর ধিরে ধিরে রেনু বিএনপি দিকে ঝুকে পরে।

ওয়ান ইলেভেনের পর মহাজোট সরকারের আ’লীগ ক্ষমতায় আসলে মিরকাদিম পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে রেনু আবার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নেয়। কিন্তু এবার আর তিনি নির্বাচনে বের হতে পারেননি। বরং ইতিহাসকে টেক্কা দিয়ে আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী শহিদুল ইসলাম শাহিন মেয়র হিসেবে নির্বাচনে জয়লাভ করে।

এবারো রাষ্ট্রের ক্ষমতায় মহাজোটের আ’লীগ। আর মহাজোটের অংশীদার জেপি’র আনোয়ার হোসেন মঞ্জু। সেই দাবিতে রেনু এখানকার নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী হতে চাচ্ছেন। কিন্তু মিরকাদিমের আ’লীগ মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে রেনুকে চায় না।

কারণ বিগত দিনে রেনু ক্ষমতায় থাকার সময় বিএনপি’র দিকে ঝুকে ছিল। নানা কারণে এখানকার আ’লীগ রেনুর কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। তাই রেনু মহাজোটের প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা কম। বরং নির্বাচনে নিজেদের ঘর থেকে প্রার্থী দিতে আ’লীগ হোম ওর্য়াক করছে।

বিক্রমপুর সংবাদ

Comments are closed.