মুক্তারপুর-মানিকপুর-মুন্সীগঞ্জ সড়কের বেহাল দশা

শেখ মো. রতন: মুন্সীগঞ্জ-মানিকপুর-মুক্তারপুর সড়কের বেহাল দশা সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই এ রুটে চলাচল সম্পুর্ণ অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

সড়কটির প্রায় দুই কিলোমিটার জুড়ে অসংখ্য খানা-খন্দ ও বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। এ সড়কে চলতে গিয়ে প্রায়শই নানা দুর্ঘটনা ঘটছে। বাংলা নববর্ষের আগেই এটি মেরামত করার কথা থাকলেও তা হয়নি।

জেলা শহরের মুখে এই সড়কের দুরাবস্থার কারণে পথচারীদের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) রাস্তাটি চলাচল উপযোগী করতে কোনো উদ্যোগই নিচ্ছে না।

মুক্তারপুর পেট্রোল পাম্প থেকে শহরের মুখে মানিকপুরের আলু গবেষণা কেন্দ্র (কন্দাল ফসল গবেষণা কেন্দ্র) পর্যন্ত এই সড়কে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষের চলাচল। এই সড়ক দিয়েই জেলার একমাত্র জেনারেল হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসা নিতে যেতে হয়। ফলে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি হাসপাতালে চলাচলকারী প্রসূতি নারীসহ রোগীদের মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকায় যাতায়াত করতে এবং জেলার টঙ্গিবাড়ী, সিরাজদিখান, লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলার লোকজনকে জেলা শহরে আসতে হয় এই সড়ক দিয়ে। জেলা শহরের অফিস-আদালত, ব্যাংক-বীমাসহ নানা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াত করতেও এই সড়কের বিকল্প নেই। স্কুল-কলেজসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদেরও এই পথেই চলাচল করতে হয়।

এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, গত কয়েক বছর ধরে সড়কটির এই বেহাল অবস্থা। হেঁটে বা গাড়িতে যাতায়াত করাও কঠিন হয়ে পড়েছে। অনেক স্থানে কার্পেটিং উঠে রাস্তায় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ওয়াহিদুজ্জামান জানান, শিগগিরই গর্তগুলো ভরাট করে-মেরামতের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ জন্য প্রকল্প হাতে নেওয়ার পরিকল্পনা চলছে।

সাধারণ জনগণের দাবি, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যেন দ্রুত সরেজমিনে এসে পর্যবেক্ষণ করেন এবং রাস্তাটি নতুন করে মেরামতের ব্যবস্থা করেন

রাইজিংবিডি

Comments are closed.