তোরে এই বাড়ি থেইকা বিদায় করুম, একটা জমি বেইচা!

একটা জমি বেইচা তোরে এই বাড়ি থেইকা বিদায় করুম। তোর মতন ফকিরের মাইয়া এই বাড়িতে থাকার দরকার নাই। বাঁচতে চাইলে এই বাড়ি থেইকা চইলা যা। দু’চোখ মূছতে মূছতে এভাবেই কথাগুলো বলছিলো মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার লক্ষীবিলাশ গ্রামের হতদরিদ্র রবীন্দ্র বৈদ্যের মেয়ে চন্দ্রিকা।

নির্যাতীত চন্দ্রিকা বলেন, বিয়ের পর থেকে আমার শাশুড়ী মায়া রানী সরকার আমাকে ফকিরের মেয়ে বলে মারধর করতো। ভেবেছিলাম এক সময় এটা থেমে যাবে কিন্তু এখন মারধরের মাত্রা বেরে গেছে। আমার শাশুড়ি আমার স্বামীকে বিয়ে দেয়ার জন্য আমাকে নির্যাতন করে বাড়ি থেকে বের করে দিতে চায়। যৌতুক না পেয়ে উৎপল সরকার (২৮) নামে এক ব্যক্তি তার স্ত্রীর ওপর নির্যাতন চালিয়েছে। বর্তমানে গৃহবধূ চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সিরাজদিখান থানায় গিয়ে জানা যায়, ওই ব্যক্তি যৌতুক না পেয়ে তার স্ত্রী চন্দ্রিকা সরকারের শরীরে লোহার রড ও মাটি পেশনের কাঠের মুগুর দিয়ে পিটিয়ে থেতলে দেয়। এতে তার সম্পূর্ণ শরীর ফুলে গেছে। এদিকে ওই গ্রামে বিচারের দাবীতে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে এরাকাবাসী।

এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের ভারারিয়া গ্রামের মন্টু সরকারের প্রথম পুত্র সিংগাপুর প্রবাসী উৎপল সরকারের (২৮) সঙ্গে গত আট বছর আগে উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের লক্ষীবিলাশ গ্রামের হতদরিদ্র রবীন্দ্র বৈদ্যের মেয়ে চন্দ্রিকা সরকারের (২২) বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই চন্দ্রিকার উপর বিভিন্ন সময় তার শশুড়,শাশুড়ী,দেবর ও স্বামী নির্যাতন করত। মান সম্মানের ভয়ে চন্দ্রিকা কাউকে নির্যাতনের কথা না বলে নীরবে সহ্য করে গেছেন।

গত ৯ ই মার্চ চন্দ্রিকাকে তার শ্বশুর মন্টু সরকার হাতুরী দিয়ে মাথায় ও শরীরে আঘাত করলে চন্দ্রিকা গুরুত্ব আহত হয়। এতে চন্দ্রিকার শরীরের বিভিন্ন অংশ ফাটালের দাগ দেখা যায়। বিষয়টি গ্রাম্য শালিশের মাধ্যমে মিমাংশা হয়। তাদের উৎসব সরকার নামে ৬বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। এ ব্যাপারে চন্দ্রিকার বাবা রবীন্দ্র বৈদ্য জানান, চন্দ্রিকাকে বিয়ের সময় নগত টাকা দেয়া হয় নাই।

ওই সময় ওরা বিয়ের জন্য কোন যৌতুক দাবী করে নাই। এখন ওরা যৌতুক চায়। আমার মেয়েকে ফকিরের মেয়ে বলে গালিগালাজ ও মারধর করে। সিরাজদিখান থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইয়ারদৌস হাসান বলেন, এ ব্যাপারে চন্দ্রিকার বাবা রবীন্দ্র বৈদ্য বাদী হয়ে মন্টু সরকার ও তার দুই ছেলেসহ ৪ জনকে আসামি করে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। দ্রƒত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিক্রমপুর চিত্র

Comments are closed.