১২ দিন ধরে লৌহজংয়ে মাদ্রাসার ছাএ নিখোঁজ

গত ১২দিন যাবত রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ রয়েছে মাদ্রাসার ছাএ রাহাত ওরফে রবিন(১৩) পরিবারের অভিযোগ, রাহাতের নিখোঁজের বিষয়টি মাদ্রাসার শিক্ষকরা জেনে ও গোপন রেখেছে এত দিন। ছুটি কাটিয়ে গত ৭মে রাহাত তার বাবার সাথে মাদ্রায় ফিরে আসে সকালে মাদ্রাসায় এসে রাহাত রীতিমত ক্লাশও করে হাজিরা খাতায় তার উপস্থিতি রয়েছে। রাহাতকে মাদ্রাসায় রেখে বাড়িতে ফিরে যায় তার বাবা এর পর থেকে রাহাত নিখোঁজ হয়। জানাযায়, ঢাকার শ্যামপুর থানার পুর্ব জুরাইন এলাকার মোঃ রতন মিয়ার ছেলে রাহাতকে প্রায় দেড় বছর যাবত লৌহজংয়ের বেজগাঁও দারুল উলুম বহুমুখী মাদ্রসা এতিম খানা ও লিল্লাহ বোর্ডিং দেন। গত কয়েকদিন আগে রতন মিয়া মাদ্রাসায় এসে প্রিন্সিপালের কাছ থেকে ৩দিনের ছুটি নিয়ে রাহাতকে বাড়ি নিয়ে যায়।

গত ৭ মে ছুটি শেষে রতম মিয়া তার ছেলে রাহাতকে সকালে নিজ বাসা থেকে লৌহজংয়ের মাদ্রাসায় এসে দিয়েযান সকালে এর পর থেকেই রাহাত নিখোঁজ। রোববার বিকেলে মাদ্রাসা থেকে এক শিক্ষক রাহাতের বাবার কাছে মোবাইল ফোনে জানান, রাহাতকে খুজেঁ পাওয়া যাচ্ছে না। খবর পেয়ে রাহাতের বাবা রতন মিয়া লৌহজং থানায় এসে একটি ডাইরি করেন এর পর মাদ্রাসায় গেলে প্রিন্সিপাল জানান রাহাতকে যে দিন সে মাদ্রসায় দিয়েগেছে মেদিনই সে তার বাবার পিছনে পিছনে বাড়িতে চলে গেছে ভেবে তারা কোন খোঁজ খবর করেননি। মঙ্গলবার মাদ্রাসায় গিয়ে কথা হয় মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল হাফেজ মোঃ হেদায়েত উল্লাহ খানের সাথে তিনি জানান ৭ মে রাহাত ছুটি শেষে মাদ্রাসায় ফিরে এরপর আবার তার বাবার সাথে চলেযায়। রাহাত এ মাদ্রাসার নুরানী বিভাগের তৃতীয় শ্রেনীর ছাএ।

তার শ্রেনী শিক্ষক কাউসার আহাম্মেদ জানান, সকালে রাহাত তার বাবার সাথে মাদ্রাসায় আসে এরপর বাবার সাথে দেখা করে কিছু খাবার বাজার থেকে আনার কথা বলে বাবার পিছু চলে যায় আর মাদ্রাসায় আসেনি। এদিকে রাহাতের বাবা রতন জানান রাহাত কে মাদ্রায় রেখে সে বাড়ি ফিরে যায় তার ১১ দিন পর তাকে মোবাইল ফোনে জানানো হয় রাহাত মাদ্রাসায় নেই। ১১ দিন পরে বিষয়টি কেন তাদের জানানো হলো এর আগে কেন জানানো হলো না।

রাহাতের নিখোঁজের জন্য সে মাদ্রার শিক্ষকদের দায়ী করেছেন। তার দাবি অভিলম্বে রাহাতকে খুজে বের করা হউক। এক মাএ ছেলে রাহাত নিখোঁজ শুনে মা ও তার পরিবারের লোকজন ও আত্মীয়স্বজন বারবার মুর্ছা যাচ্ছেন। মঙ্গলবার বিকেলে লৌহজংয়ে বেজগাঁও দারুল উলুম মাদ্রাসায় ভিড় জমাতে থাকে রাহাতের পরিবারের লোকজন।

বাংলাপোষ্ট

Comments are closed.