মুক্তিযোদ্বা পরিবারকে ভিটে মাটি থেকে উচ্ছেদ!

স্বামীর শেষ সম্বল স্মৃতি চিহৃ কবর আর মাথা গুজার ঠাই ভিটে মাটি টুকু হারিয়ে দারে দারে ঘুরে বেড়াচ্ছে কমলা বেগম(৮৫) এক মুক্তিযোদ্বার মা। মুক্তিযোদ্বা আব্দুল মালেক মোড়ল স্বাধীনতার চার বছর পরই মারাজান। সন্তান হারানোর শোকে বিছানা নেন বাবা তাইজদ্দিন মোড়ল বছর না গড়াতেই পৃথিবী থেকে বিদায় নেন তিনিও। মুক্তিযোদ্বা ছেলে আর স্বামী হারিয়ে বেচেঁ থাকার জীবন যুদ্ব শুরু হয় কমলা বেগমের বাকি দুজন সন্তান নিয়ে। কোন বেলা খেয়ে না খেয়ে আকড়ে থাকে স্বামীর রেখে যাওয়া ভিটে মাটি টুকু নিয়ে।

তাও যেন তর সইলনা পাশের বাড়ির প্রভাবশালী জয়নাল আকনের। লোলব দৃষ্ঠি পড়ল মুক্তিযোদ্বার মা আর বিধবা কমলা বেগমের শেষ সম্বল ভিটে বাড়ি আর একটুকরো জমির উপর। কমলা বেগমের অভিযোগ গত দুই তিন দিন ধরে তার বাড়ির পাশে লাগানো রেনডি কড়ই কাঠ গাছ ১২টি প্রায় ৩ লাখ টাকা মুল্যের সব গুলো গাছ কেটে নিয়ে যায় জয়নাল আকন ও তার লোকজন শেষে শনিবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ বেশ কিছু সন্ত্রাসী লোকজন নিয়ে কমলা বেগমের বসত ঘরে হামলা চালিয়ে তাকে ঘর থেকে উচ্ছেদ করে ঘর ভেঙ্গে নিয়ে যায় সাথে ঘরের ভিতর থাকা তার সহায় সম্বল সোনাদানা ও নগত টাকা সহ সব লুটে নেয় সন্ত্রাসীরা।

বাড়ির পাশে থাকা জমির ফসল উপরে ফেলে এবং তার স্বামী আর মুক্তিযোদ্বা সন্তানের স্মৃতি বিজড়িত কবর টুকু পর্যন্ত ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেন সন্ত্রাসীরা। এই বিষয়ে কমলা বেগমের ছোট ছেলে কুদ্দুস মোড়ল বাদি হয়ে শনিবার রাত সাড়ে ১০টায় লৌহজং থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ রিয়াজুল হক জানান, অভিযোগ পেয়েঠি তদন্ত করে দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্বে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বাংলাপোষ্ট

Comments are closed.