প্রথমবারের মত মুন্সীগঞ্জে বিদ্যুত কেন্দ্র চালু হচ্ছে

মুন্সীগঞ্জে প্রথমবারের মত বিদ্যুত কেন্দ্র চালু হচ্ছে। সদর উপজেলার মিরকাদিমের কাঠপট্টিতে ৫২ মেঘাওয়ার্ডের এই বিদ্যুত কেন্দ্র আগামীকাল রবিবার বিকাল ৫টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন। এটি ঘিরে এখানে বিরাজ করছে উৎসব আমেজ। ধলেশ্বরী তীরের নতুন বিদ্যুত কেন্দ্রটি কয়েক দফা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে চূড়ান্ত করা হয়েছে। সিনহা পিপলস এনার্জি লিমিটেডের “কাঠপট্টি বিদ্যুত কেন্দ্র” নামের এই বিদ্যুত কেন্দ্র এখন চালুর অপেক্ষা মাত্র। ফার্নেস ওয়েলে ভিত্তিক এই বিদ্যুত কেন্দ্রটি মিরকাদিম গ্রিড হয়ে সরাসরি জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হতে পারবে। প্রথম পর্যায়ে ৫২ মেঘাওয়ার্ড বিদ্যুত উৎপাদন হলেও পরবর্তী এটি ১০৪ মেঘাওয়ার্ডে উন্নীত হবে।

এই বিদ্যুত কেন্দ্র চালু হওয়ায় এখনকার কৃষি শিল্প, নানা ধরনের শিল্পপ্রতিষ্ঠান বৃদ্ধি এবং নদী বেস্টিত জেলাটিতে নানা সম্ভবনার সৃষ্টি হয়েছে। কর্মস্থান বৃদ্ধিসহ প্রসারিত হবে স্থানীয় অর্থনীতি। বাস্তবায়নাধীন পদ্মা সেতুসহ এই অঞ্চলের অর্থনীতিতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটাবে এই বিদ্যুত কেন্দ্র- এমন নানা স্বপ্নে বিভোর এই অঞ্চলের মানুষ।

জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান জানান, মুন্সীগঞ্জ ১১৬ মেঘাওয়ার্ড বিদ্যুতের চাহিদা রয়েছে। আর এই কেন্দ্র চালু হওয়ায় স্থানীয় চাহিদায় সহায়তার পাশাপাশি জাতীয় গ্রিডেও যুক্ত হবে। এখানকার অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এই বিদ্যুত কেন্দ্র। তিনি জানান, দেশের ১৫ শতাংশ আলু উৎপাদন হয় মুন্সীগঞ্জে। এখানে বিদ্যুত চালিত ৬৮টি হিমাগার রয়েছে।

এই বিদ্যুত কেন্দ্র চালু হওয়ার কৃষি ক্ষেত্রের সম্ভবনাও বাড়বে। মুন্সীগঞ্জের কহিনুর হিমাগারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক উত্তম কুমার সাহা জানান, বিদ্যুত সরবরাহ স্বভাবিক থাকলে জেনারেটর চালাতে হবে না এবং আলুর গুনগত মানও ভালো থাকবে। তাই এই নতুন বিদ্যুত কেন্দ্রেটি সম্ভবনার দ্বার ঘুলে দিবে। মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুত সমিতির সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার মো. মাহবুুব রহমান জানান, ঝড় বৃষ্টির কারণে নানা সময় জাতীয় গ্রিডে সাথে সমস্যা হয়।

নিজ জেলায় বিদ্যুত কেন্দ্র থাকায় এখন বাড়তি সুবিধা থাকছে। এছাড়া এখন আর কোন লোডশেডিংও থাকছে না জেলাটিতে। এই কাঠপট্টি বিদ্যুত প্রকল্পটির প্রকল্প পরিচালক ও বাংলাদেশ বিদ্যুত উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শহীদুর রহমান খান জানান, এই কোম্পানীর সাথে ১৫ বছরের জন্য ৯ জানুয়ারি ২০১২ চুক্তি হয়। ৭ দশমিক ৭৯ মেঘাওয়ার্ড করে মোট সাতটি ইঞ্জিন ৫২ দশমিক ৫০ মেঘাওয়ার্ড বিদ্যুত উৎপাদন করবে। সাড়ে ৩ একর জমির উপর এটি নির্মিত হয়েছে। সিনহা পিপলস এনার্জি লিমিটেড ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী আলতাফ হোসেন জোরদার জানান, দক্ষিণ কোরিয়া থেকে আমদানিকৃত নতুন ইঞ্জিন ও জেনারেটর স্থাপন করা হয়েছে।

এই প্রকল্প ব্যয় হয়েছে প্রায় ৩শ’ ৩২ কোটি টাকা। জাতীয় গ্রিডে টেস্ট রান ইতোমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনের জন্য কেন্দ্রটি সম্পূর্ন প্রস্তুত রয়েছে। ফার্নেস ওয়েলের মূল্য বৃদ্ধির হার ব্যতিত প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম নির্ধারিত হয়েছে ৬ টাকা ৯১ পয়সা। বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শহীদুর রহমান খান জানান, রবিবার উদ্বোধন হওয়া মুন্সীগঞ্জের কাঠপট্টি ছড়াও নারায়ণগঞ্জের গোগনগর ও নাটোর ফার্নেস ভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র এবং ঘোড়াশালে গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্রর উৎপাদন ৩১৫ মেঘাওয়ার্ড।

এই নতুন বিদ্যুত জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হয়ে এখন কেপটিপসহ ১৩ হাজার ২৬৫ মেঘাওয়ার্ড স্থাপিত উৎপাদন ক্ষমতা হচ্ছে। দেশে গ্রীস্মকালীন বিদ্যুতের চাহিদা ৮ হাজার মেঘাওয়ার্ড। আর গত ১৫ এপ্রিল ৭ হাজার ৫শ’ ৭১ মেঘাওয়ার্ড সর্বোচ্চ বিদ্যুত উৎপাদন ও সরবরাহ হয়েছে। তাই এই ৩১৫ মেঘাওয়ার্ড বিদ্যুত জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হওয়ায় আর কোন লোডশেডিং থাকছে না দেশে।

বিদ্যুত মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. হুমায়ুন কবির জানান, প্রধানমন্ত্রী চারটি বিদ্যুত কেন্দ্র ছাড়াও একযোগে মেঘনা ঘাট থেকে আমিন বাজার ৪শ’ কেভি সঞ্চালন বিদ্যুত লাইন এবং ঢাকার লালবাগ ১৩২/৩৩/১১ কেভি বিদ্যুত উপ কেন্দ্র উদ্বোধন করবেন। যা বিদ্যুত ক্ষেত্রে আরেকটি মাইল ফলক। মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষের সাথে প্রাধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সের চূড়ান্ত প্রস্তুতি শনিবার পরীক্ষা নিরীক্ষা হয়েছে। সে কারণে বেশকজন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা এখন মুন্সীগঞ্জে অবস্থান করছেন।

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ

Comments are closed.