পদ্মা ইউনিভার্সিটিসহ আরও ৬ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদন পাচ্ছে

অনুমোদন পাচ্ছে আরও ৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। প্রস্তাবিত এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর সরেজমিন প্রতিবেদন তৈরি করছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। এ প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সেটি সারসংক্ষেপ আকারে প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠাবে। প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের পর চূড়ান্ত আদেশ জারি করা হবে। সূত্র জানায়, ১৩৩টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য আবেদন জমা পড়েছে। এর মধ্যে ইউজিসি সরেজমিন পরিদর্শন করে প্রায় ১০০টির বিষয়ে মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদনও জমা দিয়েছে। সেখান থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ৬টির ওপর সরজমিন প্রতিবেদন করতে বলেছে।

প্রস্তাবিত ৬টি বিশ্ববিদ্যালয় হলো- সাউথ স্টেট ইউনিভার্সিটি বরিশাল, ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি-হাজারীবাগ ঢাকা, পদ্মা ইউনিভার্সিটি মুন্সীগঞ্জ, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি তেজগাঁও ঢাকা, রিগ্যাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ গাজীপুর, ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজি, চট্টগ্রাম। এ ৬টির অনুমোদন হলে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা দাঁড়াবে ৮৯টিতে। মো. সামছুল আলম বলেন, সরজমিন পরিদর্শন করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন প্রতিনিধিসহ ইউজিসি একটি কমিটি গঠন করেছে। এই কমিটি গঠন প্রস্তাবিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বিষয়ে সরেজমিন পরিদর্শন করা হবে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ২০১০ এ আইন অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ের আবেদনের পর প্রস্তাবিত বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে ইউজিসি সরেজমিন পরিদর্শন করে। সেখানে প্রস্তাবিত বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রয়োজনীয় অবকাঠামোসহ সুযোগ-সুবিধা আছে কি না, তা যাচাই করে প্রয়োজনীয় সুপারিশ করে। এরপর অনুমোদন দেয়া হয়। ইউজিসি’র পরিচালক (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়)। জানতে চাইলে শিক্ষাসচিব নজরুল ইসলাম খান বলেন, ৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর সরজমিন প্রতিবেদন করতে ইউজিসিকে বলা হয়েছে। চূড়ান্ত অনুমোদনে বিষয়টি দেখবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। এর বেশি কিছু বলতে রাজি হননি তিনি। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, গত ৩০শে মার্চ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সিনিয়র সহকারী সচিব ফাতেমা জাহান স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, এই ৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের জন্য প্রজেক্ট প্রোফাইল (পিপি) সংযুক্ত করে দেয়া হয়েছে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী সরজমিন তদন্তক্রমে একটি প্রতিবেদন জমা দিতে ইউজিসিকে অনুরোধ করা হবে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে. যারা এই ৬টি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য আবেদন করেছেন সবাই ব্যবসায়ী ও ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গে যুক্ত। বরিশালে স্টেট ইউনিভার্সিটির জন্য আবেদন করেছেন ব্যবসায়ী শাহ্‌ আলম। বরিশালের ক্ষমতাসীন দলের একজন প্রভাবশীল নেতা এটির সঙ্গে যুক্ত। রাজধানীর হাজারীবাগে ওয়েস্টার্ন ও মুন্সীগঞ্জে পদ্মা এই দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য আবেদন করেছেন একই পরিবারের দুইজন। পারভীন শিকদার ও জয়নুল শিকদার।

কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটির জন্য আবেদন করেছেন ব্যবসায়ী বেনজীর আহমেদ। এটির সঙ্গে একজন ইলেকট্রনিক ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি জড়িত। গাজীপুরে রিগ্যাল অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির জন্য স্থানীয় একজন মন্ত্রীর সুপারিশে ব্যবসায়ী একেএম মোস্তফিজুর রহমান এবং চট্টগ্রামে ক্ষমতাসীন একজন এমপি জড়িত ইউনিভার্সিটি অব ত্রিুয়েটিভ টেকনোলজি সঙ্গে। এটি জন্য আবেদন করেছেন ব্যবসায়ী মুহাম্মদ ওসমান।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসি সূত্র বলছে, প্রধানমন্ত্রী গত বছর ৩১শে আগস্ট শিক্ষা মন্ত্রণালয় পরিদর্শন করে প্রতি জেলায় একটি করে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে যে নির্দেশনা দিয়েছেন, তার এ ঘোষণা বাস্তবায়ন করতেই নতুন এই ৬টি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদন দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, শিক্ষা উদ্যোক্তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন ইতিমধ্যে স্থান পরিদর্শন শুরু করছেন। দ্রুত এই প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দেবে ইউজিসি। প্রতিবেদন পাওয়ার পরে আবেদন যাচাই-বাছাই করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠিয়ে দেবে।

মানবজমিন

Comments are closed.