স্কুলছাত্র শাওন হত্যার বিচার দাবীতে মানববন্ধন

শ্রীনগরে প্রভাবশালীদের বাঁধা উপেক্ষা করে
আরিফ হোসেন:
শ্রীনগরে প্রভাবশালীদের বাঁধা উপেক্ষা করে স্কুলছাত্র শাওনের হত্যাকারীদের বিচার ও লাশের ময়না তদন্তের দাবিতে মানব বন্ধন করেছে এলাকাবাসী। শুক্রবার দুপুর ১২ টার দিকে কুকুটিয়া কমলাকান্ত উচ্চ বিদ্যালয় প্রঙ্গনে শাওনের সহপাঠি ও এলাকাবাসী মিলে কুকুটিয়া একতা সংঘের ব্যানারে এ মানব বন্ধনে অংশ গ্রহন করে। মানববন্ধনে অংশগ্রহনকারীরা শাওনের হত্যাকারীদের বিচার দাবি করে।

এর আগে সকাল ১০ টায় পূর্ব নির্ধারিত মানববন্ধন কর্মসূচির ঘোষনা থাকলেও সরকার দলীয় ওই এলাকার একটি প্রভাবশালী মহল মানববন্ধন বানচাল করার জন্য কুকুটিয়া বিদ্যালয়ের আশ-পাশে জড়ো হওয়া লোকজনকে ভয়ভীতি দেখিয়ে মানববন্ধনে আংশ নিতে নিষেধ করে এবং স্থানীয় সাংবাদিকদেরকে জানানো হয় মানববন্ধন হবেনা। পরে দুপুর বারটার দিকে বাধা উপেক্ষা করে কুকুটিয়া একতা সংঘের ব্যানারে শাওনের সহপাঠি ও এলাকার কিছুলোক মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে।

গত ২২ মার্চ গভীর রাতে শ্রীনগরের কুকুটিয়া কমলাকান্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেনীর মেধাবী ছাত্র মো: শাওন শেখের লাশ কুকুটিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহজাহান চিস্তির ওরশ বাড়ির পাশের একটি পুকুর হতে উদ্ধার করা হয়। এর পূর্বে রাত ১০ টার দিকে ওরশ বাড়ির অসামাজিক কর্মকান্ড ও গাজা সেবনে বাধা প্রদান করায় শাওন , সুফল ও মাসুমের প্রতি আক্রমন করে ওরশ আয়োজক কমিটির লোকজন। এর কিছুক্ষন পরই শাওন নিখোঁজ হন।

পরে অনেক খোজাখোজির পর চিশিÍ বাড়ির পাশের একটি পুকুর পারে শাওনের সেন্ডেল ও মোবাইল ফোন পাওয়া যায়। এর সূত্র ধরে পুকুরের কচুরী পানার নীচ হতে শাওনের লাশ উদ্ধার করে এলাকাবাসী। তখন প্রভাব শালী ওই মহলটি প্রচার চালায় শাওনকে দয়ালে নিয়ে গেছে। পরের দিন প্রচার চালায় শওনকে শয়তানে মেরে ফেলেছে। লাশের ময়না তদন্ত করতে কয়েক লাখ টাকা লাগবে শাওনের গরীব পরিবারকে এ রকম ভয়ভীতি দেখিয়ে পুলিশকে না জানিয়ে ময়না তদন্ত ছাড়াই শাওনের লাশ পূর্ব মুন্সীয়া কবর স্থানে তরিঘড়ি করে দাফন করা হয়। এ নিয়ে এলাকায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করলেও প্রভাবশালী ওই মহলটির ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছিলনা।

এলাকাবাসী আরো জানায়, কমলাকান্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও শাহজাহান চিস্তির ভাই উপজেলা যুবদলের সহ-সভাপতি মিজান চিস্তি সকালে বিদ্যালয়ের অনুমতি না নিয়ে মানববন্ধন করা যাবেনা বলে মানববন্ধন বানচালের চেষ্টা করে। প্রভাবশালী মহলটি মানববন্ধন প্রতিহত করতে বৃহস্পতিবার রাত থেকে মানববন্ধনে অংশ না নিতে নানাভাবে গ্রামবাসীদের আগাম নিষেধ করে। “মানববন্ধন হচ্ছেনা, শেষ হয়ে গেছে” বলে সাধারণ মানুষকে রাস্তার বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এতে জনমনে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

একটি সূত্র দাবী করেছে, সরকার দলের লোকজনের চাপের কারণে এ মানব বন্ধনে বাধার সৃষ্টি করা হয়। সরকার দলের কিছু লোকজন ও প্রভাবশালী একটি মহল বিষয়টি ধামা-চাপা দিতে উঠে পড়ে লেগেছে।

এ ব্যাপারে ওরশ বাড়ির মালিক শাহজাহান চিস্তির সাথে যোগাযোগ করলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, শাওনের লাশ পাওয়া গেছে আমার বাড়ির দুটি বাড়ি পরে। তাছাড়া সাধুদের সাথে মারামারির ঘটনা শাওনের মুত্যুর কয়েক দিন পরে। আমার বাড়িতে কোন অসামাজিক কর্ম হয়না। তবে সাধু লোকজন এক আধটু গাজা খেলে খেতেও পারে। আমাকে ফাঁসানোর জন্য ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

Comments are closed.