ট্রলারডুবি: শিশুসহ ৫ মৃতদেহ উদ্ধার

গজারিয়ার ভাসানচরের কাছে মেঘনা নদীতে যাত্রীবাহী ট্রলার ও বাল্কহেডের সংঘর্ষের ঘটনায় এক শিশুসহ পাঁচজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন জানান, বুধবার রাতের ওই দুর্ঘটনায় পর উদ্ধার কর্মীরা বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নদীর বিভিন্ন স্থান থেকে চারজনের লাশ উদ্ধার করেছে।

“এর আগে দুর্ঘটনার পর রাতেই ফায়ার সার্ভিস, নৌ পুলিশ ও কোস্টগার্ড উদ্ধার কাজ শুরু করে আনুমানিক ২৫ বছর বয়সী এক যুবকের লাশ উদ্ধার করে।”

পুলিশ কর্মকর্তা মাসুদ জানান, সর্বশেষ লাশ দুটি ডুবে যাওয়া ওই ট্রলার থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

এর আগে সকালে গজারিয়ার মোল্লাকান্দি থেকে ভাসমান অবস্থায় মুনিয়া (৩) নামে একটি শিশু ও অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবকের লাশ উদ্ধার হয় বলে জানান তিনি।

পরিচয় শনাক্তের পর প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহত প্রত্যেকের স্বজনদের ২০ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে বলে জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল জানিয়েছেন ।

যাত্রীদের বরাত দিয়ে গজারিয়া থানার এসআই হাবিবুর রহমান জানান, মা-বাবার দোয়া নামের বাল্কহেডটি বালু ভর্তি করে ঢাকার দিকে যাওয়ার পথে রাত ৮টার দিকে ঝড়বৃষ্টির মধ্যে বিপরীত দিক থেকে আসা ট্রলারটির মাঝ বরাবর ধাক্কা দেয়। ওই সময় ট্রলারে অন্তত ৭৫ জন আরোহী ছিলেন।

“সংঘর্ষের পর বাল্কহেডটি ট্রলারের গায়ে আটকে যায়। কোনোভাবে ছুটাতে না পেরে চালক ও কর্মচারীরা তাদের নৌযান রেখেই পালিয়ে যায়।”

ওই অবস্থায় ভাসতে ভাসতে দুর্ঘটনাকবলিত নৌযান দুটি প্রায় আধা কিলোমিটার উত্তরে গজারিয়ার ছোট ভাসানচর এলাকায় পৌঁছে যায়। তবে বাল্কহেডে আলো জ্বালানো থাকায় রাতেই নৌযানদুটো খুঁজে পাওয়া সম্ভব হয়।

নৌপুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় প্রশাসন রাতেই উদ্ধার কাজ শুরু করে। আনুমানিক ২৫ বছর বয়সী এক যুবকের লাশ পাওয়া যায় ট্রলার ও বাল্কহেডের মাঝামাঝি স্থানে।

এএসপি মাসুদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এখনো কতজন নিখোঁজ তা বলা যাচ্ছে না। লাশগুলো স্থানীয় বউশিয়া ঘাটে রাখা হয়েছে। ট্রলার ও বাল্কহেডটি উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ছোট বসুর চরে।”

ট্রলারের বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা বলছেন, গজারিয়ার ভাসানচর, কুমিল্লার মোল্লাকান্দি এবং চাঁদপুরের নবীপুরার মোহনায় ওই সংঘর্ষ ঘটে।

ট্রলারের যাত্রী ঢাকার বাদামতলীর ধনিয়ার মো. শামীম বেঁচে গেলেও তার দশ বছরের সন্তান ফয়েজের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি বলেও এসআই হাবিবুর জানান।

ট্রলারের আরেক যাত্রী নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের পিয়াস (২৫) জানান, তারা মেঘনা-গোমতী সেতুর (দাউদকান্দি সেতু) বাউশিয়ার লঞ্চঘাট থেকে ট্রলারে করে চাঁদপুরের বেলতলীর লেংটার মেলায় যাচ্ছিলেন।

“রাত সাড়ে ৭টায় ট্রলারটি ছাড়ে। মূল মেঘনা নদীর মোহনায় ঝড়ের মধ্যে দুর্ঘটনা ঘটে। এতে বেশকিছু যাত্রী আহত অবস্থায় তীরে উঠে চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন স্থানে চলে যান।”

বিডিনিউজ

Comments are closed.