শ্রীনগরে শিক্ষকের নির্মম নির্যাতনে মাদ্রাসা ছাত্র হাসপাতালে

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে এক মাদ্রাসা শিক্ষকের নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে ৩দিন ধরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে মো: ইব্রাহিম (১০) নামে হেফজ বিভাগের এক ছাত্র। পড়া না পাড়ার কারনে উপজেলার হাসাড়া আশ্রাফিয়া কাওমি মাদ্রাসায় মধ্য যুগীয় কায়দায় ইব্রাহিমকে চাবুক দিয়ে পিটানো হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখাযায় ইব্রাহিমের হাতে পিঠে ও পায়ে ৩-৫ ইঞ্চি দির্ঘ ১৪ টি চ আঘাতের চিন্হ রয়েছে। আঘাতের পর তিনদিন পার হয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত আঘাতের স্থানগুলো ফুলে রক্ত জমাট বেধে লাল হয়ে আছে। কোমল মতি ছাত্রের উপড় শিক্ষকের এমন পাশবিক নির্যাতনের ঘটনায় হাসাড়া এলাকার অভিবাবকদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। ইব্রাহিমের বাবা হাবীব ওরফে হাবু বেপারী হাসপাতালে কান্না জড়িত কন্ঠে সাংবাদিকদের জানান মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের শিক্ষক আশ্রাফুল ইসলাম তার সন্তানকে মধ্যযুগীয় কায়দায় যেভাবে চাবুক দিয়ে আঘাত করেছে তা কোন বাবার পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব নয়।

ঘটনার পর ইব্রাহিম অসুস্থ হয়ে পড়লে অন্য এক ছাত্রের কাছ থেকে খবর পেয়ে তিনি তার ছেলেকে মাদ্রাসা থেকে বাড়িতে নিয়ে আসতে গেলে আবুল হোসেন নামে আরেক শিক্ষক তার সাথে খারাপ ব্যবহার করেন বলে হাবু বেপারী অভিযোগ করেন। তিনি ঐ শিক্ষকদের উপযুক্ত বিচার দাবী করেন।

এব্যাপারে অভিযুক্ত শিক্ষক আশ্রাফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি ইব্রাহিমকে আঘাতের কথা স্বীকার করে বলেন, পড়া না পাড়ার কারণে তাকে পেটানো হয়েছে।

মাদ্রসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি বি,রহমান বলেন, মাদ্রাসায় পড়া লেখা করতে এসে যদি এরকম নির্যাতনের শিকার হতে হয় তাহলে তা কোন অভিবাবকের পক্ষেই মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। তিনি অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আশ্বাষ দেন।

Comments are closed.