জাপান প্রবাসীদের বসন্ত উৎসব পালন

রাহমান মনিঃ ঋতুরাজ বসন্তকে বেশ সাড়ম্বে বরণ করে নিল জাপান প্রবাসীরা। প্রকৃতির অপরূপ সাজে বাংলাদেশে কান পাতলেই কুহুকুহু কিংবা পলাশ-শিমুল-ডালিয়া বা কৃষ্ণচূড়ায় মন মাতানো আগুনরাঙা ফাগুনের আগমনী বার্তা জানান দিলেও জাপানে সেই সুযোগটি কিন্তু নেই। কারণ আনুষ্ঠানিক জাপানে ফাগুনের আগমন ঘটে কনকনে শীতের মধ্য দিয়ে। জাপানে বসন্তকাল শুরু হয় ৪ ফেব্রুয়ারি। মধ্য জাপানসহ পুরো জাপানেই থাকে হিমাঙ্কের নিচে তাপমাত্রা। এত নিচে তাপমাত্রা তাকা সত্ত্বেও জাপানে ঋতুরাজ বসন্তে উমে এবং মোমো (একধরনের জলপাই এবং পিচফল) প্রকৃতিকে রঙিন করে তোলে।

বসন্তবরণ উপলক্ষে জাপান প্রবাসীরা একত্রিত হয়েছিল টোকিওর কিতা সিটি কিতা আকাবানে ফুরেআইকান-এ আয়োজিত বসন্তবরণ উৎসবে। মেতেছিল নানান রঙের বর্ণিল সাজে। স্থানীয় জাপানি বন্ধুরাও অংশ নিয়েছে প্রবাসীদের এ আয়োজনে। অংশ নিয়েছেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন।

বাংলাদেশ আর্ট ফোরামের ব্যানারে বসন্তকাল উৎসবের মূল সেøাগান ছিল ‘সারাটা জীবন হোক বসন্তকাল’। তানিয়া ইসলাম মিথুনের পরিকল্পনা ও নির্দেশনায় এবং প্রবাসীদের সহযোগিতায় এবারের আয়োজনটি ছিল তৃতীয়বারের মতো। এর আগে ২০১৪ সালে টোকিওর ইতাবাসী গ্রিণ হলে এবং তারও আগে সাইতামা কেনের সোকা প্রথমবারের মতো বসন্ত উৎসবের আয়োজন করা হয়।

তৃতীয়বারের মতো এ আয়োজনটি ছিল অন্য যে কোনো আয়োজনের তুলনায় বেশ গোছালো ও পরিপক্ব। এবারের উৎসবে বেশ কিছু নতুন শিল্পীকে দেখা গেছে।
বাংলা সাহিত্যের উজ্জ্বল নক্ষত্র হুমায়ূন আহমেদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তারই সৃষ্টি হিমু, মিসির আলী এবং বাকের চরিত্রগুলো ফুটিয়ে তোলা ছিল বিশেষ সাফল্য। এছাড়াও ছোট্ট পরী নাসরার নাচ এবং আকি বড়–য়ার নাচ দর্শক উপভোগ করেছেন।

যথারীতি এবারও প্রবাসী সাংস্কৃতিক সংগঠন উত্তরণ সংগীত পরিবেশন করে।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Comments are closed.