গজারিয়া রসুলপুরে ইউপি সদস্যকে হত্যার হুমকি

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) এক সদস্য ও তাঁর চাচাতো ভাইকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ইউপি সদস্যের নাম মো. তোফাজ্জল হোসেন। তিনি রসুলপুর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য। মাদক ব্যবসার প্রতিবাদ করায় গত ২৫ জানুয়ারি তাঁকে এ হুমকি দেওয়া হয়েছে। এর পর থেকে ভয়ে তিনি এলাকায় থাকতে পারছেন না।

তোফাজ্জল হোসেন গতকাল বুধবার বলেন, ‘মাদক ব্যবসার প্রতিবাদ করায় গত বছরের ২৮ আগস্ট আমার চাচাতো ভাই আলু ব্যবসায়ী আমির হোসেনকে ধরে নিয়ে মেঘনা হিমাগারের ভেতরে অমানবিক নির্যাতন করেন স্থানীয় রাসেল ও তাঁর লোকজন। ওই ঘটনার প্রতিবাদে আমরা মানববন্ধন করি এবং প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি দিই। এর পর থেকে রাসেল ও তাঁর লোকজন আমাকে ও আমার চাচাতো ভাইকে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছেন। হুমকির ঘটনায় থানায় একাধিক সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছি। সর্বশেষ ২৫ জানুয়ারি রাসেল ও তাঁর লোকজন আমাদের বাড়িতে এসে ১৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন, অন্যথায় হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। ওই ঘটনার পর থেকে আমি এলাকাছাড়া। বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘রাসেল ইউপি চেয়ারম্যান মনসুর আহমেদ জিন্নার ভাগনে। তাঁর কাছে রাসেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিলেও তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি। বরং ঘটনার মীমাংসার জন্য তিনি আমার কাছে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করেছেন।’

জানতে চাইলে মনসুর আহমেদ জিন্না বলেন, ‘তোফাজ্জল হোসেন আমার কাছে এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ করেননি। তাঁকে পাঁচ লাখ টাকা দিতে বলেছি—এমন কোনো প্রমাণ তিনি দেখাতে পারবেন না।’ যোগাযোগ করলে রাসেল মাদক ব্যবসার কথা অস্বীকার করে বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে তোফাজ্জল ও আমির হোসেনের করা অভিযোগ সঠিক নয়।

গজারিয়া থানার ওসি ফেরদৌস হাসান বলেন, ‘রাসেল খারাপ ছেলে। তাকে আমরা একাধিকবার ধরে আদালতে চালান করেছি। আদালত থেকে সে প্রতিবারই জামিনে বেরিয়ে আসে।’ ইউপি সদস্য এলাকাছাড়া—এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অভিযোগ পেলে এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রথম আলো

Comments are closed.