তারেক রহমানের ‘বিশেষ দায়িত্বে’ সাদেক হোসেন খোকা!

সরকারবিরোধী আন্দোলনের তীব্রতা বাড়াতে ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকাকে ‘বিশেষ দায়িত্ব’ দিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। রাজধানী ঢাকার সামর্থব্যান নেতাকর্মীরা যেনও রাজপথে নেমে প্রকাশ্য আন্দোলন শুরু করে, সে ব্যাপারে খোকাকে সর্বাত্মক চেষ্টা চালাতে বলেছেন তিনি। প্রায় সাড়ে ৮ মাস ধরে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকারী খোকাও এ ব্যাপারে বিএনপির দ্বিতীয় প্রধান নেতাকে আশ্বস্ত করেছেন।

শুধু আশ্বাস নয়, আগামী দু-চারদিনের মধ্যেই ঢাকার রাজপথে প্রকাশ্যে উত্তাপ ছড়াতে একান্ত অনুসারী প্রভাবশালী নেতাদের সঙ্গে ইতোমধ্যে যোগাযোগও শুরু করেছেন ঢাকার সাবেক মেয়র। তারেক রহমানের নির্দেশনা অনুযায়ী ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাসসহ মহানগরের অন্য নেতাদের সঙ্গে সমন্বয় করেই অনুসারীদের রাজপথে নামতে বলেছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত খোকার ঘনিষ্ট একাধিক সূত্রে মিলেছে এ তথ্য।

সূত্রমতে, চিকিৎসার প্রয়োজনে গত বছরের ২৬ মে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার পর সাদেক হোসেন খোকার সঙ্গে কয়েক দফা কথা বলেছেন তারেক রহমান। তাদের মধ্যে সর্বশেষ কথা হয়েছে গত ১ ফেব্রুয়ারি। তারেক রহমানের সঙ্গে কথা বলার পরদিন ২ ফেব্রুয়ারি নিউইয়র্কে জাসাসের এক সমাবেশে ‘৩০ মিনিটের মধ্যে ঢাকাকে আওয়ামী লীগ মুক্ত করা সম্ভব’ বলে বক্তব্য দেন খোকা। এর আগে গত বছরের ২২ নভেম্বর লন্ডন গিয়ে তারেক রহমানের সঙ্গে দু-দফা বৈঠক করেন তিনি। ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তায় খোকা যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে যান।

সূত্রগুলো দাবি করেছে, গত ৬ জানুয়ারি থেকে বিরতিহীন অবরোধ কর্মসূচির মাধ্যমে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের সরকারবিরোধী নতুন পর্বের আন্দোলনে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের ভূমিকায় সন্তুষ্ট হলেও ঢাকার রাজপথে আন্দোলন জমে না উঠায় মহানগরের নেতাদের প্রতি অসন্তুষ্ট তারেক রহমান। বিশেষ করে মির্জা আব্বাসের নেতৃত্বাধীন মহানগর কমিটির নেতাদের প্রতি বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের প্রত্যাশা বেশি থাকলেও তারা এক্ষেত্রে হতাশ করেছেন তাকে।

বিভিন্ন মাধ্যমে ঢাকা মহানগর নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করার পর ঢাকার আন্দোলন জমে না উঠার নেপথ্যে সাদেক হোসেন খোকার অনুসারীদের নিষ্ক্রিয়তাকে দায়ী করেছেন মহানগর নেতারা। খোকার অনুসারীরা সক্রিয় হয়ে নতুন কমিটির নেতাদের সঙ্গে সমন্বয় করলেই ঢাকার রাজপথে প্রকাশ্য সরকারবিরোধী আন্দোলন চাঙা করা সম্ভব বলেও জানানো হয় তারেক রহমানকে। সবকিছু জানার পরই খোকাকে ঢাকায় আন্দোলন জমানোর জন্য ‘বিশেষ দায়িত্ব’ দেন তারেক রহমান।

খোকার ঘনিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, তারেক রহমানের নির্দেশনা পাওয়ার পর থেকে খোকা তার অনুসারী নেতাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ শুরু করেছেন। অনুসারী ছাড়াও দল ও জোটের একাধিক জ্যেষ্ঠ নেতার সঙ্গেও আন্দোলন বিষয়ে কথা বলেছেন তিনি। সূত্রগুলো জানায়, গত এক সপ্তায় খোকা আন্দোলন বিষয়ে একাধিকবার কথা বলেছেন ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস, মহানগর বিএনপির সদস্যসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেল, ঢাকা মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-আহাবায়ক আব্দুল আউয়াল মিন্টু ও মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এম এ কাইয়ুমের সঙ্গে। ভাইভারের মাধ্যমে এসব নেতাদের সঙ্গে কথা বলেন খোকা।

আলাপকালে ঢাকার আন্দোলন তীব্র করার বিষয়ে খোকা নিজের পরামর্শ দেন। এছাড়াও খোকা কথা বলেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন আহমেদের সঙ্গেও। সূত্রমতে, খোকার পরামর্শেই ব্রিফিংসহ সরকারবিরোধী রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছেন হাফিজ। বিএনপির একাধিক সূত্রে জানা গেছে, শুধু ঢাকার রাজপথে আন্দোলন তীব্র করার ক্ষেত্রেই নয়, তারেক রহমানের পরামর্শে সাদেক হোসেন খোকা ২০-দলীয় জোটের বাইরে থাকা একাধিক দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখছেন।

বিকল্পধারা সভাপতি অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনসহ আরও একাধিক নেতার সঙ্গেও যুক্তরাষ্ট্র থেকে কথা বলেছেন তিনি। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গত ৩ জানুয়ারি গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে অবরুদ্ধ হওয়ার পর প্রতিবাদ জানাতে এসব নেতাকে অনুরোধ করেন খোকা।

সূত্র আরও জানায়, বিএনপির আন্দোলনের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করতে খোকার পরামর্শে গত ৪ জানুয়ারি রাতে গণফোরাম সভাপতি ড. কামালের সঙ্গে তার বেইলি রোডের বাসায় বৈঠক করেন ঢাকা মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল আউয়াল মিন্টু। ওই বৈঠকের পর থেকেই ড. কামাল হোসেনসহ তার ঘনিষ্টরা কৌশলে বিএনপির আন্দোলনের দাবির সঙ্গে সহমত পোষণ করে মাঝেমধ্যে বক্তব্য দিয়ে আসছেন।

প্রাইমনিউজ

Comments are closed.