শ্রীনগরে কোটি টাকার সরকারী জমি দখল করে আ’লীগ নেতার মাটি ভড়াট

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে এক ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীকে বিএনপি সমর্থক বানিয়ে তার লিজকৃত জমির উপর থেকে দোকান ঘর ভেঙ্গে নেওয়ার আলটিমেটাম দিয়ে ঐ জমিসহ কোটি টাকার সরকারী জমিতে মাটি ভড়াট করছে ভাগ্যকূল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক সামাদ মেম্বার ওরফে কালা সামাদ ও তার সিন্ডিকেট চক্র। বুধবার দুপুরে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানারা বেগম মাটি ভড়াটের কাজ বন্ধ করে দেওয়ায় ভূমিদস্যু সামাদ মেম্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে দোষারোপ করে উল্টো প্রশ্ন রাখেন, আওয়ামী লীগের লোকজন কি আঙ্গুল চোষবে?

এলাকাবাসী জানায়, আলামিন বাজারের মাছ বাজারের কাছে সরকারী হালটের উপর শেখ আব্দুস সামাদ দুটি দোকান ঘর নির্মান করে দির্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছিল। তার এ দোকান ঘর সহ পার্শ্ববর্তী সরকারী জমির উপড় সম্প্রতি দৃষ্টি পড়ে ঐ এলাকার আওয়ামী লীগের হাইব্রিড নেতা সামাদ মেম্বার ওরফে কালা সামাদের। বেশ কিছুদিন ধরে ঐ স্থানে মার্কেট নির্মানের কথা বলে কালা সামাদ এলাকার লোকজনের কাছ থেকে ১৫/২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়।

এর পর থেকে কালা সামাদ তার সাঙ্গ-পাঙ্গ নিয়ে দোকান ঘর সহ সরকারী জমি দখলের পায়তারা শুরু করে। বুধবার সকালে সে দোকান ঘর দুটি আগামী সাত দিনে মধ্যে সরিয়ে নেওয়ার আল্টিমেটাম দিয়ে ট্রলি গাড়ি দিয়ে দোকানের পাশে মাটি ভড়াটের কাজ শুরু করে। পরে দোকান মালিকের আবেদনের প্রেক্ষিতে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানারা বেগম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মাটি ভড়াটের কাজ বন্ধ করে দেন।

এলাকাবাসী আরো জানান, কয়েকদিন পূর্বে কালা সামাদ তার সিন্ডিকেট নিয়ে ঢাকা-দোহার সড়কের কামার গাও এলাকার পাকা ব্রিজের কাছে নাগর নন্দী খাল দখল করে বিল্ডিং নিমার্ণ শুরু করে। এছাড়াও সে কয়েকমাস ধরে আলামিন বাজারের একটি মার্কেটের মালিককে জিম্মি করে পাচঁটি দোকানের ভাড়া আদায় করে নিচ্ছে। তার বিরুদ্ধে ভূমি দস্যুতা সহ এলাকায় নানা রকম অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে।

জমি ভড়াটের ব্যাপারে ভাগ্যকূল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান একুল খান জানান, সরকারী হালটের পাশের জমির মালিক দোহার উপজেলার ইঞ্জিনিয়ার মেহবুব। সামাদ শেখ লিজ নিয়ে দোকান ঘর নির্মান করেছিল। কালা সামাদ সরকারী জায়গা সহ ইঞ্জিনিয়ার মেহেবুবের ব্যক্তিমালিকানা জমিতেও মাটি ভড়াট করেছে।

কালা সামাদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের লোকজন সরকারী জমি দখল করতে পারলে আমারা কেন পারবনা।

এব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানারা বেগম বলেন, ইউনিয়ন ভূমি অফিসের কর্মকর্তাকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। তার প্রতিবেদনের আলোকে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments are closed.