‘চাষীর চেতনা কোনো নির্দিষ্ট দলের নয়’

চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন বলেছেন, ‘চাষী নজরুল ইসলাম একটা রাজনৈতিক দলের আদর্শ অনুসরণ করলেও তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী। দল একটা মঞ্চ হতে পারে, কিন্তু চেতনা তো কোনো মঞ্চের নয়।’

জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে রবিবার বিকেলে আয়োজিত এক স্মরণসভায় তিনি এ সব কথা বলেন।

সদ্যপ্রয়াত বরেণ্য চলচ্চিত্রকার, একুশে পদকপ্রাপ্ত চাষী নজরুল ইসলামের কর্মময় জীবনের ওপর এ স্মরণসভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ডিজিটাল ফিল্ম সোসাইটি।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘চাষী ভাই সবচেয়ে বেশি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন শরৎচন্দ্রের রচনা নিয়ে। তার চেহারাও শরৎচন্দ্রের মতো। এমন একটা মানুষকে রাজনৈতিক ফ্রেমে বাঁধা যায় না।’

চাষী নজরুল অসাম্প্রদায়িক চেতনার ছিলেন উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘ব্রিটিশ সময়ের ক্যামেরাম্যান সাধন রায়কে তিনি পিতার মতো দেখতেন। সাধন রায়ের কোনো সন্তানাদি ছিল না। মৃত্যুর পর চাষী নজরুল তার মুখাগ্নি করেছিলেন। তার মতো অসাম্প্রদায়িক চেতনার মানুষ খুব কমই দেখা যায়।’

প্রয়াত মিশুক মুনীরের সহধর্মিণী মঞ্জুলী কাজী বলেন, ‘চাষী ভাই ছিল আমার ছায়া। আমার দুর্যোগকালেও তিনি সবসময় পাশে থেকেছেন। যিনি মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এত সিনেমা করলেন তার জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে সরকারের কেউ পাশে ছিল না। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটেরও কেউ আসেনি। আমি প্রশ্ন রাখতে চাই, চাষী ভাই আসলে কার? কোন দলের?’

চাষী নজরুল ইসলামের কন্যা আন্নি ইসলাম বলেন, ‘বাবাকে নিয়ে এখন অনেকে অনেক কথা বলছেন। বাবা বেঁচে থাকলে বলতাম, দেখো, তোমাকে নিয়ে কত মানুষ কত কথা বলছে। বাবাকে যে সবাই ভাল বলছে, এ জন্য আমি গর্ববোধ করছি।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চনের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় আরও বক্তব্য রাখেন চিত্রনায়ক শেখ আবুল কাশেম মিঠুন, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতির (বাচসাস) সহ-সভাপতি লিটন এরশাদ, জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক জোটের মহাসচিব রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

দ্য রিপোর্ট

Comments are closed.