মায়ের কবরের পাশে শায়িত হবেন চাষী নজরুল

বাংলা ছায়াছবির ভুবনের জনপ্রিয় পরিচালক একুশে পদক প্রাপ্ত চাষী নজরুল ইসলামকে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার সমষপুর গ্রামে বাবা মোসলেম উদ্দিনের কবরের পাশে চির শায়িত করা হবে। সোমবার বিকেল ৩ টার দিকে তার লাশ পৈত্রিক বাড়ি সমষপুর গ্রামে আনা হবে। সেখানে নামাজের জানাযা শেষে অন্তিম ইচ্ছা অনুযায়ী তাকে সমষপুর কবরস্থানে বাবার কবরের পাশে সমাহিত হবেন চাষী নজরুল।

রোববার দুপুর ১ টার দিকে মোবাইল ফোনে কথা হলে এ সব তথ্য জানিয়েছেন- বাংলা ছায়াছবির অনন্য পরিচালক চাষী নজরুল ইসলামের মামাত ভাই নাসির উদ্দিন।

তিনি জানান, চাষী নজরুল ইসলামের রাজধানীর আরামবাগের জসিমউদ্দিন রোডের বাড়িতে শোকাহত মানুষের ঢল নেমেছে। আজ জসিমউদ্দিন রোডের মসজিদে তাঁর একটি নামাজের জানাযা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তাঁর লাশের কফিন রাখা হবে ঢাকার ল্যাব এইড হাসপাতালের হিমগরে।

সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাব, বায়তুল মোকারম মসজিদে নামাজের জানাযা শেষে বিকেল নাগাদ চাষী নজরুর ইসলামের লাশ তার পৈত্রিক বাড়ি মুন্সীগঞ্জের সমষপুর গ্রামে নিয়ে যাওয়া হবে। তাঁর মৃত্যুতে মুন্সীগঞ্জ জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিউল ইসলাম হিরু বলেন- বাংলা ছায়াছবির ভুবনে চাষী নজরুল ইসলামের তুলনা হয় না।

চাষী নজরুল ইসলামের তুলনা হয় শুধু তার নিজের সঙ্গেই। জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের পক্ষ থেকে তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি শহীদ-ই-হাসান তুহিন ও সাধারন সম্পাদক কাজী দীপু চাষী নজরুল ইসলামের মৃত্যুতে গভীর শোক ও পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।

তারা বলেন- চাষী নজরুল ইসলাম একজন শক্তিমান পরিচালক ছিলেন। তিনি ছিলেন- দেশ প্রেমিক। রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি যেমনই থাকুক, তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের একজন মানুষ। অনিয়মিত সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর সভাপতি সুজন হায়দার জনি বলেন- তাঁর মৃত্যুতে অপুরনীয় ক্ষতি হল বাংলা ছায়াছবির ভুবনে। তিনি একজন কিংবদন্তি পরিচালক ছিলেন।

Comments are closed.