বনের বাঘ যেমন থাকে বনে ঠিক তেমনি, অবরোধ আছে শুধু কাগজে কলমে

শিমুলিয়ার পদ্মারপাড়ে জাতীয় ঘুড়ি উৎসব
‘বনের বাঘ থাকুক বনে, ঘুড়ি উড়ুক নীল গগণে’ -শ্লোগাণকে সামনে রেখে ‘জাতীয় ঘুড়ি উৎসব-২০১৫’ অনুষ্ঠিত হলো মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়ার পদ্মারচড়ে। শুক্রবার দিনভর নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পদ্মা নদীর চরে শিশু বৃদ্ধাসহ শত শত মানুষের সমাগমে এ ঘুড়ি উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বাংলাদেশ ঘুড়ি ফেডারেশনের আয়োজন ঘুড়ি উৎসবের উদ্বোধন করেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

উদ্বোধনশেষে বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী বলেন, বনের বাঘ যেমন থাকে বনে ঠিক তেমনি অবরোধ আছে শুধু কাগজে কলমে। আর আমরা আছি সম্মুখপানে আর রাস্তায়। তিনি বলেন, অবরোধ দিয়ে জাতীয় অগ্রগতি থামানো যাবে না। অবরোধ বলে কোন কিছু নেই।অবরোধ উপেক্ষা করে এখানে এত মানুষের আগমন প্রমাণ করে তারা অবরোধ চান না। তিনি আরো বলেন, ২০১৬ সালকে পর্যটন বর্ষ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। সেখানে ঘুড়ি হবে অনন্য উপাদান। অনেক মাঠ সংস্কার করা হচ্ছে।কিন্তু নগরায়নের কারণে ঘুড়ি উৎসব সম্ভব হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। সম্মানিত অতিথি ছিলেন চীনা দূতাবাসের কর্মকর্তা হুয়াং লী। এতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জ্বালানী ও শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান এ আর খান, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল, বাংলাদেশ ঘুড়ি ফেডারেশনের সভাপতি ড. এ আর খান, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান মৃধা, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশীদ শিকদার, পদ্মা রিসোর্টের স্বত্ত্বাধিকারী মোহাম্মদ আলী প্রমুখ।

এদিকে ঘুড়ি উৎসবকে কেন্দ্র করে দিনব্যাপী আয়োজনে ছিল, ঘুড়ি দিয়ে মানুষের মাঝপদ্মার আকাশে ওড়া প্যারাসেল, বাঘ্রনৃত্য, চীন বালাদেশের জাতীয় পতাকায় আদলে মৈত্রী ঘুড়ি ওড়ানো আর ওড়ানো ঘুড়ির প্রতিযোগীতা। ওড়ানো হয় হাজার রকমের ঘুড়ি। বাঘ ও সিংহ নৃত্য, ঘুড়ি কাটাকাটি প্রতিযোগিতা। আকর্ষণীয় পর্বে সহ¯্র ঘুড়ি উড্ডয়নে পকেট কাইট, স্ট্যান্ট কাইট, ড্রাগন কাইট, সিরিজ কাইট, ট্রেন কাইট, ডেলটা ও কমপ্লেক্স কাইট, বক্স কাইট উড্ডয়ন।

বাংলাপোষ্ট

======

কিছু ছবি বিডি নিউজ 24 এর সৌজন্যে…