ইছামতির গায়ক আবেদ আলী

আতিকুর রহমান টিপু: নাম তাঁর আবেদ আলী। বাবা হাসমত মাঝি। মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার দোসরপাড়াতে তাঁর বাড়ি। বাবার অসুস্থতার কারণে ৩ ভাই ১ বোনের দায়িত্ব তাঁর কাঁধের উপর। ইছামতি নদীর সে সবচেয়ে কনিষ্ঠ মাঝি। ১২ বছর বয়সের এই মাঝি প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ইছামতি নদীতে মানুষ পারাপার করে। প্রতিদিন ২শ থেকে আড়াইশ টাকা তাঁর উপার্জন হয়। এ দিয়ে চলে তাঁর সংসার। অবসর পেলেই মনের সুখে গান ধরে এই কিশোর।

লেখাপড়া করার সুযোগ তার না হলেও ভাই বোনদের স্কুলে পাঠাতে কাপুণ্য করেনি। সে জানায়, জীবনে লেখা পড়া করে বড় হওয়ার স্বপন্ন থাকলেও এখন আর নেই। যাত্রী বেশি হলে তার মন আনন্দে ভরে উঠে আর যাত্রী কম হলে মনটা বিষন্ন থাকে বলে জানায়। মাঝে মাঝে অনেকেই তাকে নির্ধারিত ভাড়ার বেশি তাঁর হাতে গুজে দেয়। নিতে না চাইলেও অনেকটা জোর করেই দিয়ে যায়। ইছামতি নদীর এই মাঝির জীবন কাটে মরা ইছামতিকেই নিয়ে।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা