শিমুলিয়া ঘাটে মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যায় লাখো যাত্রী

মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল: হ্যালো…হ্যালো… আমাকে শুনতে পারছ না। হ্যালো… হ্যালো…এভাবে হ্যালো হ্যালো করতে করতেই মোবাইলটি বিরক্তসহকারে রেখে দিলেন শিমুলিয়া ঘাটে লঞ্চের জন্য অপেক্ষমাণ বরিশালগামী যাত্রী ব্যবসায়ী রফিকুজ্জামান রফিক। ঢাকায় ব্যবসার কাজ সেরে সোমবার সকাল ৯টার দিকে তিনি শিমুলিয়া ঘাটে পৌঁছে তার স্ত্রীকে নিজের অবস্থান সম্পর্কে জানাতে মোবাইল ফোনে কথা বলতে চাচ্ছিলেন।

কিন্তু নেটওয়ার্ক সমস্যার কারণে তা আর সম্ভব হয়নি। দক্ষিণাঞ্চলের এখানকার প্রবেশদ্বার মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়ার নতুন ফেরিঘাটে মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক বিড়ম্বনা চরম আকার ধারণ করেছে। এতে করে লাখো মানুষ ঘাটে এসে ব্যবসায়িক কাজ-কর্মসহ প্রিয়জনের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করলেও কল বিভ্রাটের কারণে ঠিকমতো কথা বলতে পারছেন না। গণাধ্যমকর্মীরাও নেটওয়ার্ক সমস্যায় পড়ে সংবাদ আদান প্রদানের ভোগান্তির মধ্যে পড়ছেন। গত ২৭ নবেম্বর মাওয়া ঘাট প্রায় ২ কি.মি. পূর্বে শিমুলিয়ায় সরিয়ে আনা হয়।

কিন্তু কাছাকাছি মোবাইল ফোনের কোন কোম্পানির টাওয়ার না থাকায় এ ঘাটে নেটওয়ার্ক সমস্যায় পড়ে কথা বলতে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে হাজার হাজার যাত্রী, বিআইডব্লিউটিএ, বিআইডব্লিউটিসি কর্মকর্তা-কর্মচারী, পরিবহন শ্রমিক, পুলিশ প্রশাসনিক কর্মকর্তাসহ গণমাধ্যম কর্মীদের। দেশের সব ক’টি মোবাইল ফোন কোম্পানিরই এখানে নেটওয়ার্ক সমস্যার কারণে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। মাওয়া ঘাটে থ্রি-জি নেটওয়ার্ক পাওয়া গেলেও শিমুলিয়া ঘাটে তা একে বারেই নেই। লৌহজং উপজেলার ইউএনও মোঃ খালেকুজ্জামান জানান, নতুন ঘাটে নেটওয়ার্ক সমস্যা হচ্ছে। তবে মোবাইল কোম্পানিগুলো এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেবেন বলে আমরা আশা করছি।

জনকন্ঠ