লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চাষী নজরুল ইসলাম

লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন গুণী চলচ্চিত্র নির্মাতা চাষী নজরুল ইসলাম। তাকে রবিবার রাত ১টার দিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থা এখন সংকটাপন্ন।

ল্যাব এইড হাসাপাতালে প্রফেসর ডা. সৈয়দ আকরামের চিকিৎসা তত্ত্বাবধানে রয়েছেন এই নন্দিত নির্মাতা।

চাষী নজরুল ইসলামের পারিবারিক সূত্র থেকে জানা গেছে, রবিবার রাতে হঠাৎ করে পেটের ব্যথা বেড়ে গেলে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তার অবস্থা এখন সংকটাপন্ন। তার সারা শরীরে ইনফেকশান ছড়িয়ে পড়েছে। মঙ্গলবার সকালে তাকে দেখতে হাসপাতালে যান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

১৯৬১ সালে ফতেহ লোহানীর পরিচালনায় ‘আছিয়া’ চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে চাষী নজরুল ইসলামের চলচ্চিত্রে কর্মযাত্রা শুরু হয়। এরপর প্রখ্যাত সাংবাদিক ও চলচ্চিত্রাকার ওবায়েদ-উল-হকের সহকারী হিসেবে ‘দুই দিগন্ত’ চলচ্চিত্রে কাজ করেন ১৯৬৩ সালে। ১৯৭১-এর স্বাধীনতা যুদ্ধের পর তিনিই প্রথম নির্মাণ করেন মুক্তিযুদ্ধভিক্তিক চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’।

এই চলচ্চিত্রটি ১৯৭২-এ মুক্তি দেওয়ার মাধ্যমে পরিচালক হিসেবে চাষী নজরুলের আত্মপ্রকাশ করেন। তিনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতিতে চারবার সভাপতি পদে নির্বাচিত হন।

চাষী নজরুল ইসলাম পরিচালিত উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে রয়েছে, ওরা ১১ জন, সংগ্রাম, বাজিমাত, দেবদাস, চন্দ্রনাথ, বেহুলা লক্ষিন্দর, বিরহ ব্যথা, বাসনা, দাঙ্গা ফ্যাসাদ, পদ্মা মেঘনা যমুনা, শিল্পী, হাঙর নদী গ্রেনেড, হাছন রাজা, মেঘের পরে মেঘ, শাস্তি, সোভা, দুই পুরুষ, রঙিন দেবদাস।

পরিচালনার স্বীকৃতি হিসেবে তিনি অর্জন করেছেন একুশে পদক(২০০৪), বাংলাদেশ সিনে জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশন এ্যাওয়ার্ড, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (১৯৮৬ শ্রেষ্ঠ পরিচালক), শের-ই-বাংলা স্মৃতি পুরস্কার, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইয়ুথ অর্গানাইজেশন ফেডারেশন এ্যাওয়ার্ড, স্যার জগদীশচন্দ্র বসু স্বর্ণপদক, জহির রায়হান স্বর্ণপদক, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (১৯৯৭, হাঙর নদী গ্রেনেড), বিনোদন বিচিত্রা এ্যাওয়ার্ড, জেনেসিস নজরুল সম্মাননা পদক।

দ্য রিপোর্ট