প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস!

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটেছে। প্রশ্নপত্র এখন সদর থানার শহর ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের অভিভাবক ও ছাত্রছাত্রীদের হাতে শোভা পাচ্ছে বলে জানা গেছে। সোমবার স্কুলের প্রথম, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির পরীক্ষা ফাঁস হয়ে যাওয়া প্রশ্নপত্রের মাধ্যমে হয়েছে বলে সূত্রটি জানায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্র সংগ্রহ করা এক অভিভাবকের সাথে আলাপ করলে তিনি বলেন, সদর উপজেলার অধিকাংশ অভিভাবকই পূর্ণাঙ্গ সেট সংগ্রহ করেছে। কোথা থেকে করেছে এ বিষয়ে কোন কিছু না জানালেও অন্য একটি সূত্র জানায় উপজেলা শিক্ষা অফিসের অসাধু কর্মকর্তারা উৎকোচের বিনিময়ে এটি সরবরাহ করেছে। ফলে পরে তা ফটোকপি ও হাতে লেখা আকারে সর্বত্র বিক্রি হচ্ছে।

আর একটি বিস্বস্ত সূত্র জানায়, প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষকরা ছাত্রছাত্রীদের অধিকহারে পাশ করানোর জন্য প্রশ্নপত্র অভিভাবকদের মধ্যে সরবরাহ করছে। ফলে তা সবার জন্য সহজলভ্য হয়ে পড়েছে। অন্য আরেকটি বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, এ ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে সদর থানার শিক্ষা ব্যবস্থা অনেকটাই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়বে।

এ ব্যপারে সদর থানার নির্বাহী কর্মকর্তা সারাবান তহুরার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত নই। তবে এ বিষয়ে খোজ খবর নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের ব্যপারে সদর উপজেলার শিক্ষা অফিসার তাছলিমা বেগমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিস্ময় প্রকাশ করেন এবং বলেন বিষয়টি দেখছি।
উল্লেখ্য, ফাঁস হয়ে যাওয়া প্রশ্নপত্রের পূর্ণাঙ্গ সেট অভিভাবক ও ছাত্রছাত্রীদের হাতে পৌছানোর ঘটনায় শহরের অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেছে।

সংগ্রাম

Comments are closed.