মাওয়ায় টি আই এর বিরুদ্বে অবৈদ চাঁদা আদায়ের অভিযোগ

শেখ সাইদুর রহমান টুটুল: এবার অবৈধ ভাবে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে বিআইডাব্লিউটিএর, টি আই (ট্রাফিক ইনিসপেক্টর) রিয়াদ হোসেনের বিরুদ্বে। খোদ লঞ্চ মালিকদের অভিযোগে জানাযায়, লঞ্চ ঘাটে থাকা টি আই রিয়াদ হোসেন প্রতিটি লঞ্চ থেকে একশ’ টাকা করে চাঁদা নিচ্ছে প্রতিদিন।

মালিকরা জানান, অভিনব কায়দায় এখন সে অবৈদ ভাবে চাঁদা আদায় করে চলেছে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে চলাচল রত ৮৬ টি লঞ্চ থেকে। পল্টুনে যাএী ভরা শেষ হলে টিআই রিয়াদ ইশারায় কেরানীকে ডাকে পল্টুনের ভিতরে থাকা অফিস কক্ষে এখানে লঞ্চের কেরানী এসে একশ’ টাকা দিয়ে তার পরে লঞ্চ ছারে। আর দুর্বল লঞ্চ মালিক হলে তাদের লঞ্চের কাগজপএে ত্রুটি আছে বলে ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে পাঁচশ থেকে এক হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় বলেও অভিযোগ রয়েছে রিয়াদ হোসেনের বিরুদ্বে।

এক লঞ্চ মালিক নাম না প্রকাশে সে জানায়, প্রতিটি টিবে এই টিআই কে টাকা দিতে হয় তানা হলে কোননা কোন অভিযোগ এনে তাদের লঞ্চ সিরিয়াল থেকে আউট করে দেয়া হয় এবং কাগজে ভেজাল আছে বলে দায়ভার লঞ্চ মালিকের উপর চাপিয়ে দেয়া হয় এজন্য সহজে কোন মালিক মুখ খুলে না। এই বিষয়ে টিআই রিয়াদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিবেদক কে জানান, এসব মিধ্যে কথা এর কোন ভিত্তি খোজে পাবেননা। যে সব লঞ্চের কোন কাগজপএ নেই এবং একটু করাকরি করলে তারা আমার বিরুদ্বে অভিযোগ করবে এটাই স্বাভাবিক।

এছাড়া মাওয়া কাওড়াকান্দি নৌরুটে পিনাক-৬ লঞ্চ ডুবির ঘটনার পর থেকে কড়াকড়ি নিয়নকানুনের জন্যই আমার উপর এই দোষ চাপানো হয়েছে বওে আমি মনে করি।

বাংলাপোষ্ট

Comments are closed.