শ্রীনগরে মন্দিরের জমি দখলের অভিযোগ!

মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগরের একটি ভূমিদস্যু চক্র ‘শ্রী শ্রী বাসুদেব জিউ মন্দিরের’ জমি দখলের চক্রান্ত করছে বলে অভিযোগ করে মন্দিরের জমি রক্ষার দাবি জানিয়েছেন মন্দিরটির সেবায়েত রাধেশ্যাম ঘোষ।

বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাব বর্ধিত হলরুমে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন।

রাধেশ্যাম ঘোষ বলেন, মন্দির দখল করতে চক্রটি উল্টো আমার বিরুদ্ধেই জমি দখলের অভিযোগ এনে গত ১৫ নভেম্বর কয়েকটি গণমাধ্যমে খবর ছাপিয়েছে, যা সত্য নয়।

তিনি বলেন, ‘১১৮ শতাংশ জায়গা সম্বলিত বাসুদেব জিও মন্দিরটি প্রাচীন মন্দির। মন্দিরের জমি কখনোই বিক্রয় বা হস্তান্তর করা যায় না। শুধুমাত্র পরিচালনার জন্য কমিটি বা সেবায়েত নির্বাচিত হয়। তাই মন্দিরের জমির দলিলে মন্দিরের পক্ষে সেবায়েতের নাম থাকে। তেমনিভাবে বাসুদেব জিউ মন্দিরটির পক্ষে দলিলে আমার নাম থাকলেও জায়গাটি মন্দিগরের নামেই রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমি কখনোই এই জমি বিক্রি করতে যাই নি বা বিক্রি করতেও পরব না। অতএব গণমাধ্যমে প্রকাশিত আমার নামে জমি দখলের অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।

তিনি জানান, আমাদের বাঘাপাড়া ইউনিয়নে একটি শশ্মানঘাট ছিল। কিন্তু বহুপূর্বেই এটি বেদখল হয়ে যায়। এখন একটি শশ্মানঘাটের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়ায় আমি এলাবাসীদের নিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু ঐ ভূমিদস্যু চক্রটি বাসুদেব জিও মন্দিরের পাশে শশ্মান করার জন্য আমাকে হুমকি দিচ্ছে।

মন্দিরের পাশে জায়গা দিতে রাজি না হওয়ায় তার নামে মিথ্যা প্রচার ও প্ররোচনা চালিয়ে তাকে সেবায়েতের পদ থেকে সরানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, ‘আমি সবার সাথে বসে বিষয়টা সমাধানের চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু তারা কোন কথা না শুনেই এ ধরনের মিথ্যা সংবাদ প্রচার করে আমাকে সরানোর চেষ্টা করছে।

তিনি সরে গেলে মন্দিরের জমিটিও বেহাত হয়ে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেন রাধেশ্যাম ঘোষ।

বিডিলাইভ

Comments are closed.