মুন্সিগঞ্জে জেলায় সবজি আবাদে ব্যস্ত কৃষকেরা

মুন্সিগঞ্জ জেলায় চলতি শীত মৌসুমের সবজি আবাদে কৃষকেরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। বীজতলা তৈরি, সবজির চারা রোপণ ও জমিতে সার-কীটনাশক দেওয়ার কাজ করছেন তাঁরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ বছর জেলায় শীতকালীন সবজি আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় চার হাজার ৩৩ হেক্টর জমি। ইতিমধ্যে আবাদ করা হয়েছে দুই হাজার ৩৭৮ হেক্টর জমিতে। জেলার ছয় উপজেলার মধ্যে সদর ও টঙ্গীবাড়ী উপজেলায় সবচেয়ে বেশি সবজি আবাদ হয়ে থাকে। শীতকালীন সবজির মধ্যে এসব অঞ্চলে লাউ, শিম, মুলা, পালংশাক, বরবটি, ফুলকপি, বাঁধাকপি ইত্যাদি আবাদ হয়ে থাকে।

সরেজমিনে সদর উপজেলার রামপাল, বজ্রযোগিনী ও পঞ্চসার ইউনিয়ন ও টঙ্গীবাড়ী উপজেলা বেতকা, আবদুল্লাহপুর ও সোনারং এলাকায় দেখা যায়, এখানকার চাষিরা কেউ লাউয়ের জন্য ঝাঁকা তৈরি করেছেন। কেউ কপির চারাগাছে সার দিচ্ছেন। আবার কেউ নতুনভাবে সবজির চারা লাগাচ্ছেন।

সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের কেবিরবাগ এলাকায় কপি খেতে সার দিচ্ছেন চাষি মনির হোসেন। মনির হোসেন বলেন, তিনি এ বছর ফুলকপির বীজতলা তৈরি করেছেন। তারপর জমিতে কপির চারা রোপণ করেছেন। বাকি বীজতলা বিক্রি করছেন।

বজ্রযোগিনী গ্রামের মো. সেলিম জানান, তিনি দুই কানি জমিতে লাউয়ের চারা লাগিয়েছেন। এখন চারা বড় হচ্ছে। তাই ঝাঁকা দেওয়ার কাজ করছেন।

কৃষকেরা বলেন, মুন্সিগঞ্জের সবজির দেশ ও বিদেশে চাহিদা রয়েছে। এ ছাড়া ঢাকার কারওয়ান বাজার, নারায়ণগঞ্জের ডিগবাবু বাজার, সদরঘাটসহ বিভিন্ন আড়তদারেরা মুন্সিগঞ্জের সবজির জন্য অপেক্ষা করেন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবদুল আজিজ জানান, এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে সবজি আবাদ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে।

প্রথম আলো

Comments are closed.