মুন্সীগঞ্জে চোর ও ডাকাত আতঙ্কে সন্ত্রস্ত মানুষ

মোজাম্মেল হোসেন সজল: খুন-খারাবি, অপহরণ, ধর্ষণ, দাঙ্গা-হাঙ্গমার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে মুন্সীগঞ্জে চুরি-ডাকাতির ঘটনা আশঙ্কাজনকহারে বেড়ে গেছে। সর্বত্র বিরাজ করছে চোর-ডাকাত আতঙ্ক। বাসা-বাড়ি, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানের কেউ রেহাই পাচ্ছেনা এ থেকে।

এলাকাবাসী রাত জেগে পাহারা দিয়েও নির্মূল করতে পারছেনা ডাকাতি-চুরিরোধ। এদিকে, প্রশাসনও রয়েছে নিশ্চুপ। পুলিশ ডাকাতির ঘটনাকে অনেক ক্ষেত্রে চুরি হিসেবে নথিভুক্ত করছে। আবার অনেকে থানায় কোন মামলা করছে না।

পুলিশ সংশ্লিষ্টদের আটক না করে অন্যদের আটক করে পেন্ডিং মামলায় গ্রেপ্তার দেখায়। অনেক সময় নিরীহদের আটক করে পেন্ডিং মামলায় জড়ানোর পর আটককৃতদের স্বজনরা বাদীর বাড়িতে গিয়ে হাজির হন। পুলিশের এ কার্যকলাপে ভুক্তভোগীদের অনেকেই নিরুৎসাহিত হয়ে থানায় মামলা করতে আসেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। এ অবস্থায় ভেঙ্গে পড়েছে গোটা জেলার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি। এর মধ্যে গজারিয়া উপজেলার চিত্র ভয়াবহ। গজারিয়া উপজেলার পুরোটাই মেঘনা- গোমতী নদী বেষ্টিত। আর এ সুযোগে ডাকাত চক্র গ্রামবাসীদের সর্বশান্ত করে মেঘনা ও মহাসড়ক দিয়ে চলে যায় নিশ্চিন্তে, এমনটাই জানালেন এলাকাবাসী।

চলতি বছরের আগস্ট-সেপ্টেম্বর-অক্টোবর-নভেম্বর মাসে এ অবস্থা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।

গত ১২ ই নভেম্বর দিবাগত রাতে সদর থানার অদূরে শহরের মানিকপুর রোডের রাজিয়া হামিদ প্লাজার মেডিল্যাব ডায়াগনস্টিক সেন্টার সংলগ্ন মীম ফার্মেসীতে দুর্ধর্ষ চুরি সংঘঠিত হয়। দোকানের কলাপসিবল গেটের তালা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে ফার্মেসী দোকানের প্রায় সাড়ে ৪ লাখ টাকার ওষুধ চুরি করে নিয়ে যায় বলে দোকানের মালিক মো জুয়েল জানিয়েছেন। এ ঘটনায় সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

গত ২ রা নভেম্বর দিবাগত রাত ৩টার দিকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল সংলগ্ন মুগ্ধ ফার্মা নামক ওষুধের পাইকারী দোকানে তালা ভেঙ্গে সাড়ে ৪ লাখ টাকার ওষুধসহ মূল্যবান মালামাল চুরি হয়। এ ঘটনায় মুগ্ধ ফার্মা’র মালিক মো. মেরাজ বাদী হয়ে সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

গত ৩১ শে অক্টোবর দিবাগত রাত ৩টায় গজারিয়া উপজেলার ইমামপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেনের (৪৫) বাড়িতে ১৫-২০ জনের একটি ডাকাতদল বাড়ির লোহার দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে বাড়ির সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত-পা বেঁধে ২৫ ভরি স্বর্ণ নগদ ১ লাখ টাকা ৩টি মোবাইল সেটসহ প্রায় ১৫ লাখ টাকার মালামাল লুটে নেয় ডাকাত দল এবং পাশের বাড়ির ব্যবসায়ী মো. রাশেদুলের (৪০) বাড়ি থেকে দুই ভরি স্বর্ণ, নগদ ২০ হাজার টাকাসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে পালিয়ে যায় ডাকাত দল।

২৮ শে অক্টোবর দিবাগত রাত ২টার দিকে ১৫-২০ জনের সংঘবদ্ধ ডাকাত দল গজারিয়া উপজেলার উত্তর শাহাপুরের জহিরুল মাস্টারের বাড়ির জানালার গ্রিল কেটে ঘরে ঢুকে অস্ত্রের মুখে সবাইকে জিম্মি করে নগদ দেড় লাখ টাকা, ১০ ভরি স্বর্ণ ও মোবাইল সেট নিয়ে যায়। পরে পাশের বাড়ির বাতেন ঢালীর বাড়িতে একইভাবে ডাকাতি করে নগদ ৩০ হাজার টাকা, ৩ ভরি স্বর্ণ ও মোবাইল সেট নিয়ে যায়। এরপর পাশ্ববর্তী মিরেরগাঁও গ্রামের ইসমাঈলের বাড়িতে ডাকাতি সংঘটিত হয়। সেখান থেকে নগদ ৫০ হাজার টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নেয়।

শ্রীনগরের আড়িয়ল বিলে জেলেদের মাছ অব্যাহতভাবে ডাকাতির ঘটনায় গত ৩০ শে অক্টোবর বিকেল ৫টার দিকে ডাকাত মুক্ত করার দাবিতে এলাকার কয়েকশ’ নারী-পুরুষ সমাবেশ ও মিছিল করে।

এর আগের দিন ২৯শে অক্টোবর ভোরে মাছ ডাকাতির সময় স্থানীয় জনতা বন্দুকসহ শ্রীনগর উপজেলার বরিব্বর খোলা এলাকার মজর আলীর ছেলে মনোয়ার আলী, দোহার উপজেলার ফুলতলা এলাকার মৃত মোকসেদ শেখের ছেলে শহীদ শেখ ও জাকির হোসেনের ছেলে আনোয়ার নামে ৩ ডাকাতকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করে।
গত ২১ শে অক্টোবর দিবাগত রাত ২টার দিকে গজারিয়া উপজেলায় উপজেলার মধ্যভাটের গ্রামের কাশেম দেওয়ানের ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে কাশেম দেওয়ান, তার ছেলে কামরুল দেওয়ান ও তার স্ত্রী’র হাত পা বেঁধে, কানের দুল, গলার হার, একটি মোবাইল সেট, নগদ ৩০ হাজার টাকা নিয়ে যায়।

একই দিন একই সময়ে উপজেলার আলীপুরা গ্রামের আবদুল সালামের ঘরে ঢুকে দেশীয় অস্ত্র দেখিয়ে গলার চেইন, নগদ ১৭ হাজারসহ প্রায় লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে যায়।

গত ১৯ অক্টোবর দিবাগত রাতে সিরাজদিখান উপজেলার মালখানগর চৌরাস্তা বাজারে তিনটি মুদি দোকানের টিনের চাল কেটে দুর্ধর্ষ চুরি হয়েছে। চোরেরা বাজারের সাইজুদ্দিন শেখের নগদ ২১ হাজার টাকা ও ৫ হাজার টাকার মালামাল, ঝিলন খানের নগদ ৪ হাজার টাকা ও ৪ হাজার টাকার মালামাল এবং দিল মোহাম্মদের নগদ ৭ হাজার টাকা ও ১৮ হাজার টাকার মালামাল চোরেরা নিয়ে যায়।

১৬ ই অক্টোবর দিবাগত রাতে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ৫০ গজের মধ্যে বিশাল রায় শিল্প স্বর্ণালয়ে গ্রিল কেটে ও প্রাচীর ভেঙ্গে চোরেরা দোকানে প্রবেশ কওে দোকানের সিন্দুক ভেঙ্গে ৩ ভরি স্বর্ণ, ২৯ ভরি রূপা, ১৫ জোরা রূপার নুপুর, ২টি এন্ড্রয়েড মোবাইল, নগদ ১১ হাজার টাকাসহ প্রায় সাড়ে ৩ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়।
গত ১৪ ই অক্টোবর দিবাগত রাত দেড়টার দিকে সিরাজদিখানের বাসাইল ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের বাড়িতে ৭-৮ জনের একদল ডাকাত ডাকাতির চেষ্টাকালে রাজন ইসলাম (২৬) নামে সন্দেহভাজন ১ যুবককে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে স্থানীয়রা।

গত ৪ঠা অক্টোবর দিবাগত রাতে শহরের মানিকপুরের বাংলাবাজার পত্রিকার সাংবাদিক আতিকুর রহমান টিপুর মার্কেটের ওষুধ, মুদি, ইলেকট্রিক ও কনফেকশনারীসহ ৬টি দোকানে টিনের চাল কেটে দুর্ধর্ষ চুরি সংগঠিত হয়।

২৭ শে সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মেঘনা নদীতে পুলিশের সঙ্গে ডাকাতদের বন্দুকযুদ্ধে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রিংকু দেওয়ান (২২) নামে এক ডাকাতসহ শাকিল (১৩) নামে এক শিশুকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গত ১৯ শে সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ৩টার দিকে সিরাজদিখান উপজেলার বাসাইল ইউনিয়নের চরকুন্দলিয়া গ্রামের ইট ভাটার মালিক ফজল হক কোম্পানীর বাড়িতে ২০-২৫ জনের একটি ডাকাত দল বাড়ির বিল্ডিংয়ের কলাপসিবল গেটের তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। এ সময় বাড়ির সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল সেট লুট করে নিয়ে যায়।

১ লা সেপ্টেস্বর দিবাগত রাত আড়াইটায় গজারিয়া থানা সংলগ্নে ভবেরচর ইউনিয়নের নয়াকান্দি গ্রামে সঞ্জিত সরকার, রঞ্জিত সরকার ও গিয়াস উদ্দিনের বাড়িতে তাদের হাত-পা বেঁধে নগদ ৫ লাখ টাকা,স্বর্ণালঙ্কার, ২টি মোবাইল সেটসহ মুল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যায়। এর একদিন আগে ৩১ শে আগস্ট দিবাগত রাতে থানা সংলগ্ন এলাকায় অভিনব কায়দায় চালের টিন কেটে ভিতরে প্রবেশ করে ১০ টি দোকানের নগদ টাকা ও গজারিয়া উপজেলা প্রেসক্লাব থেকে একটি ল্যাপটপ ও মুল্যবান কাগজপত্র চুরি হয়।

গত ১৭ ই আগস্ট বিকেল ৫টা থেকে রাতের যে কোন সময়ে শহরের ইদ্রাকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের জালানা ভেঙ্গে চোরেরা ভেতরে ঢুকে স্টিলের আলমারি ভেঙ্গে একটি ল্যাপটপ নিয়ে গেছে। কিন্তু এ ঘটনায় মামলা হলেও পুলিশ আজোঁ কোন চোরকে গ্রেপ্তার কিংবা স্কুলের ল্যাপটপটি উদ্ধার করতে পারেনি।
এদিকে, ৫ মাস শূন্য থাকার পর ১৯ শে আগস্ট মুন্সীগঞ্জে নতুন পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার যোগদান কওে ওইদিনই সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়নে জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় অংশ গ্রহণ করেন পুলিশ সুপার হুশিয়ারি ব্যক্ত করে বলেন-আমি এসপি থাকবো আর মুন্সীগঞ্জে চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি, মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ হবে, তা হবে না।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার মুন্সীগঞ্জ বার্তাকে জানান, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। অপরাধীদের গ্রেপ্তার ও মামলাগুলোর তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা

Comments are closed.