মেঘনায় বালু উত্তোলনে বাধা : সংঘর্ষে নারীসহ গুলিবিদ্ধ ৭

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বকচর গ্রাম সংলগ্ন মেঘনায় সোমবার দুপুর ১২টা থেকে ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে নারীসহ ১২ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন সাতজন। স্থানীয়দের সঙ্গে বিজয় এন্টারপ্রাইজের বালু শ্রমিকদের এ সংঘর্ষ হয়।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) ইয়ারদৌস হাসান জানান, মেঘনা নদীতে ড্রেজারের মাধ্যমে বালু উত্তোলনে গ্রামবাসী বাধা দিলে বালু শ্রমিকদের পক্ষ থেকে গুলি করা হয়। এতে সাতজন গুলিবিদ্ধসহ আহত হন ১২ জন।

গুলিবিদ্ধরা হলেন— মিছির আলী (২৫), নুরু মাঝি (৩২), আলাউদ্দিন (৩৩), সোহেল মিজি (৩০), সাজেদা বেগম (৩৫), মেহেরুননেসা (৪২) ও রুহিতন বেগমকে (৩৫)।

তাদের মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, বকচর গ্রামে মেঘনা নদীর তীর ঘেঁষে ড্রেজারের মাধ্যমে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছিল বালু মহালের ইজারা প্রতিষ্ঠান বিজয় এন্টারপ্রাইজের শ্রমিকরা। নিজেদের বসতভিটা নদীভাঙনের শিকার হবে এ আশঙ্কায় গ্রামবাসী তাদের বালু উত্তোলনে বাধা দেয়। এ সময় বিজয় এন্টারপ্রাইজের পক্ষ থেকে গ্রামবাসীদের লক্ষ্য করে গুলি করা হয়। গুলিতে সাত গ্রামবাসীসহ মোট ১২ জন আহত হন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) ইয়ারদৌস হাসান সংঘর্ষের বিষয়ে জানান, গ্রামবাসীরা বালু উত্তোলনে বাধা দিলে বিজয় এন্টারপ্রাইজের পক্ষ থেকে ফাঁকা গুলি করা হয়। একপর্যায়ে উভয়পক্ষ সংঘর্ষে লিপ্ত হলে নারীসহ কয়েকজন আহত হন।

তিনি আরও জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষই অভিযোগ করেনি।

বিজয় এন্টারপ্রাইজের ব্যবসায়িক অংশীদার ও সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফসারুদ্দিন ভূঁইয়া আফসু সংঘর্ষের বিষয়টি স্বীকার করলেও তাদের পক্ষ থেকে গুলি করা হয়নি বলে জানান।

দ্য রিপোর্ট