“মুগ্ধ ফার্মা” দোকানে ওষুধ চুরির ঘটনায় ডাক্তার অভিযুক্ত!

ভবতোষ চৌধুরী নুপুর: মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল সংলগ্ন “মুগ্ধ ফার্মা” নামক ওষুধের পাইকারী দোকানে তালা ভেঙ্গে দুর্ধর্ষ চুরি হয়েছে। হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার (মেডিসিন) ডা. আজহারুল ইসলাম এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার ভোর আনুমানিক সাড়ে ৩ টায় সদর হাসপাতাল রোডের মানিকপুর এলাকায় চুরির ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, বিগত দিনগুলোতে এই এলাকার কোন ওষুধের দোকানসহ অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কখনো চুরির ঘটনা ঘটেনি। ২০ থেকে ২৫ টি ওষুধের দোকান রয়েছে এখানে। তবে গত পহেলা নভেম্বও মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে কর্তব্যরত মেডিকেল অফিসার (মেডিসিন) ডা. আজহারুল ইসলামের সাথে একটি সিরাপ চুরির ঘটনা নিয়ে মুগ্ধ ফার্মা’র মালিক মো. মেরাজে সাথে কথা কাটাকাটির ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা আরও জানান, এ ডাক্তার স্থানীয় কিছু নেশাগ্রস্থ ছেলের সাথে গভীর সখ্যতা রয়েছে। স্থানীয় কিছু ছেলেদের নিয়ে প্রায়ই হাসপাতালের বিভন্ন শুন্য কক্ষে দীর্ঘ সময় কাটিয়ে থাকে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ব্যবসায়ীর বড় ভাই মো. মতিন জানান, ওইদিন বিকেলে ডাক্তার আজহারুল ইসলাম দোকানে আসলে মেরাজ তাকে দোকানে বসতে বলে। তখন ডাক্তার সাহেব ডেক্টিনল, কনটিন নামের দুটি ওষুধ দিতে বলে। মেরাজ তখন ওষুধ দিতে ব্যস্ত হয়ে গেলে সুযোগ বুঝে চতুর ডাক্তার ৯০ টাকা মুল্যের কুইনর সিরাপ (এনটিভাইটিক) পকেটে পুড়ে ফেলে। এরপর ওই সিরাপটি পুনরায় মেরাজের কাছে বিক্রি করে যায়।

তিনি আরও জানান, ডাক্তার চলে গেলে মেরাজকে বিষয়টা জানাই। তখন মেরাজ হাসপাতালে গিয়ে ডাক্তারকে জিজ্ঞেস করলে তিনি প্রথম অস্বীকার করে। তবে পরে সে স্বীকার করে টাকা ফিরিয়ে দেয়। এবং ঘটনার পর ওইদিন সন্ধ্যায় ডাক্তার আজহারুল ইসলাম কিছু লোক পাঠিয়ে এ বিষয়ে কাউকে কিছু না বলার জন্য জোর করে।

ওষুধ ব্যবসায়ী মো. মেরাজ জানান, সকালে দোকানে আসলে তালা গুলো কাটা অবস্থায় ফুটপাতে পরে থাকতে দেখা যায়। তখন গেট খুলে সাটার উঠালে দেখা যায় সকল মুল্যবান ওষুধ চুরি হয়ে গেছে। ঘটনার পরপর গত শনিবারের ঘটনার বিবরণসহ চুরির ঘটনা জেলার সিভিল সার্জনকে তাৎক্ষণিক জানানো হয়। তখন তিনি দুই-তিন দিনের সময় চেয়ে মামলা না করার অনুরোধ করেন।

তিনি জানান, সোমবার দুপুর দেড়টায় চুরির ঘটনায় সদর থানায় সাড়ে ৪ লাখ টাকার ওষুধসহ মূল্যবান মালামাল চুরি ঘটনায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।
সিভিল সার্জন ডাক্তার কাজী শরীফুল আলম জানান, ঘটনাটি জেনেছি, ওষুধ ব্যবসায়ী দুপুরে আমায় অবহিত করেছে। হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. আজহারুল ইসলামকে জিজ্ঞাসা করা হবে।

তিনি আরও জানান, শনিবারের ঘটনার পর ওই অভিযুক্ত ডাক্তার যাদের পাঠিয়েছিলো তাদের আটক করলেই ডাক্তারের সম্পর্ক থাকলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার এসআই মো. শাহীদুল ইসলাম জানান, মুগ্ধ ফার্মার চুরির ঘটনায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। এর তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে ডা. আজহারুল ইসলামের মোবাইল ফোনে ফোন করা হলে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা