মুন্সীগঞ্জে আলু বীজ ক্ষতির আশঙ্কা : বিদ্যুত বিপর্যয়

হিমাগারে সংরক্ষিত বীজ আলুর ক্ষতি হয়েছে দীর্ঘ সময় বিদ্যুত না থাকার কারণে। আলু উৎপাদনের সর্ববৃহত জেলা মুন্সীগঞ্জের ৬৭টি হিমাগারে প্রায় দেড় লাখ টন আলু সংরিক্ষত রয়েছে। এর বড় একটি অংশই বীজ আলু। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বিদ্যুত না থাকার কারণে হিমাগারের তাপমাত্রা সঠিক রাখা যায়নি। যে কয়েকটি হিমাগারে জেনারেটর ছিল তাও জ্বালানি তেল সঙ্কটের কারণে চালাতে পারেনি। এতে বীজ আলুর মানও বিনষ্ট হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। হিমাগারের শেডগুলোতে এখন আলুর পসরা। এই আলু বাইরে নেয়ার আগে তাপমাত্রা কমিয়ে আনার কাজ চলছে।

কিন্তু শনিবার একটানা প্রায় ১১ ঘণ্টা এখানে বিদ্যুত না থাকায় সংরিক্ষত এই আলুর মান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আলু বের করে আনার কাজও বিঘিœত হয়। আলু চাষী রাশেদুজ্জামান জানান, এমন দীর্ঘ সময় ধরে বিদ্যুত না থাকার ঘটনা এখানে এর আগে তেমন একটা ঘটেনি। এছাড়া সম্প্রতি বিদ্যুত বিভ্রাট কম হওয়ার কারণে হিমাগার মালিকরা জেনারেটরের প্রতি তেমন গুরুত্ব দেয়নি। তাই বিদ্যুত বিপর্যয়ে এখানে আলু ভিত্তিক অর্থনীতিকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। হিমগারের আলু শ্রমিক মনির হোসেন জানান, বিদ্যুত না থাকার কারণে রবিবার এক বেলা কাজকর্ম ছিল না।

জনকন্ঠ