রমজানবেগে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ২০

মুন্সীগঞ্জে মাদক ব্যবসাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে। এ সময় মাদক বিক্রেতা সিন্ডিকেটের হামলায় ১০টি বসতবাড়ি ও ১টি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। এছাড়া নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কারসহ অন্তত ১৫ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এদিকে, এলাকা থেকে বিতাড়িত হয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে অন্তত ১শ’ নারী-পুরুষ। গতকাল সকাল ১০টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার রমজানবেগ গ্রামে এ সংঘর্ষ হয়।

এলাকাবাসী জানান, রমজানবেগ গ্রামে একটি সিন্ডিকেট দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা ব্যবসা করছিল। এ ব্যবসার বিক্রিতে বাধা দেয়া নিয়ে শহর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আশরাফ হোসেন ও অপর পক্ষের বোরহান ও খোকনের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এরপর মাদক বিক্রেতা বোরহান ও খোকনের নেতৃত্বে দেড় ঘণ্টাব্যাপী এলাকায় তা-ব চলে। তারা একে একে রমজানবেগ গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফ হোসেনের ২টি বসতঘর, তোবারক হোসেন, জাহাঙ্গীর বেপারী, জজ সরকার, নাছির সরকার, ফরিদ সরকার, আমির মোল্লা, ফুলমতি ও সালাম বেপারীর বসত-ঘর ও মো. রুবেলের কনফেকশনারি দোকান ভাঙচুর ও লুটপাট করে।

এতে নগদ টাকা, মোবাইল ফোন সেট, স্বর্ণালঙ্কারসহ মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। হাত কুড়াল, চাইনিজ কুড়াল, পাইপগান ও লোহার রড নিয়ে তা-ব চলাকালে সন্ত্রাসীরা রমজানবেগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ডুকে পড়লে শিশু শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

ঘটনাস্থল থেকে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার এসআই মো. শাহীদুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন ধরে রমজানবেগ এলাকায় ইয়াবা বিক্রি নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে এবং লুটপাট হয়। অভিযোগ পাওয়ার পর দোষীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। মুন্সীগঞ্জ শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান ভূঁইয়া জানান, এলাকায় মাদক ব্যবসা নিয়ে এ অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে।

মানবজমিন