শ্রীনগরে আটককৃতদের মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ : ২৮ জনের নামে মামলা

মোজাম্মেল হোসেন সজল: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে পুলিশের ওপর হামলা করে তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী ও হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামিকে ছিনতাই করে নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় ২৮ জনকে আসামি করে শ্রীনগর থানায় মামলা হয়েছে। মামলার পর শনিবার রাতভর অভিযান চালিয়ে পুলিশ ২২ জনকে আটক করে।

শ্রীনগর থানার ওসি (তদন্ত) মুজিবুর রহমান জানান, আটককৃতদের সম্পৃক্ততা খতিয়ে দেখে দোষীদের জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে। রোববার সকালে শ্রীনগর থানা কম্পাউন্ডে শ’ শ’ গ্রামবাসী একত্রিত হয়ে আটককৃতদের নির্দোষ দাবি করে বিক্ষোভ করে।

শনিবার রাত ৮টার দিকে শ্রীনগর থানা থেকে এক কিলোমিটার দূরে উপজেলার আরধীপাড়া নাপিত বাড়ি এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ৭ পুলিশসহ ১৭ জন আহত হয়।

পুলিশ জানায়, শনিবার সন্ধ্যায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শ্রীনগর থানার সেকেন্ড অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান ও এএসআই শওকত ওই এলাকার তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী ও হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামি সায়েমকে (৩৩) বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ আটক করে।

এসময় সায়েমের সহযোগীরা মোস্তাফিজ ও শওকতের ওপর হামলা করে তাকে ছিনিয়ে নেয়। খবর পেয়ে শ্রীনগর থানায় কর্তব্যরত ১৫-২০ জন পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে মাদক ব্যবসায়ীরা মাইকিং করে লোকজন জড়ো করে তাদের ওপরও হামলা চালায়। পুলিশ প্রতিরোধের চেষ্টা করলে তাদের সাথে মাদক ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষ বেঁধে যায়।

এসময় শ্রীনগর থানার এসআই মিজান, এএসআই আরফান, রাকিব, আশ্রাফ ও কনস্টেবল নজরুল আহত হয়। আহতদের মধ্যে এসআই মোস্তাফিজুর রহমান, এএসআই শওকত, আরফান ও কনস্টেবল নজরুলকে শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকে ইয়াবা ট্যাবলেট, ফেনসিডিল ও বিপুল পরিমাণ মাদক সেবনের সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

অপরদিকে এলাকাবাসী দাবি করে, পুলিশ সায়েমকে আটক করে ছেড়ে দেয়ার জন্য দর কষাকষির একপর্যায়ে সায়েম পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিরীহ জনগণের ওপর লাঠিচার্জ করে। এসময় অন্তত ১০ জন গ্রামবাসী আহত হয়।

এমটিনিউজ

Comments are closed.