দাউদকান্দিতে পরিবহন নেতা রাজা মিয়া হত্যার মূল আসামি গ্রেফতার

rashedদাউদকান্দি পৌর সদরের দনি সতানন্দী গ্রামে বসাবাসকারী ও দাউদকান্দি-ঢাকার যাত্রীবাহী বাস গজারিয়া পরিবহনের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোঃ রেজাউল করিম রাজা মিয়া (৪৫) কে খুনের ঘটনায় মূল আসামী রাশেদ সরকার (২৮) কে গ্রেফতার করেছে দাউদকান্দি মডেল থানা পুলিশ। দাউদকান্দি মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মামলার আইও রঞ্জন কুমার ঘোষ জানান, বুধবার বিকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার রাগদৈল বাজার থেকে রাজা মিয়া হত্যার মূল আসামী রাশেদ সরকার (২৮) কে গ্রেফতার করা হয়। সে চান্দিনা উপজেলার রাগদৈল গ্রামের আঃ সামাদ সরকারের পুত্র।

এদিকে পুলিশের নিকট রাশেদ সরকার খুনের সত্যতা স্বীকার করেছেন। এর আগে গত ১৬ জুন সোমবার দিবাগত রাতে হত্যার অপর ২ আসামী তাপস চন্দ্র শীল (২৫) এবং রাজা মিয়ার স্ত্রী আলো আক্তার (৩০) কে পুলিশ গ্রেফতার করে। ওই সময়ে গ্রেফতারকৃতরা দাউদকান্দি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (সার্বিক) মোহাম্মদ আবু ছালাম মিয়া নিকট চাঞ্চল্যকর খুনের ধারাবাহিক বর্ননা সহ ঘটনার সাথে জড়িত মর্মে অকপটে স্বীকার করেন। রাজা মিয়ার স্ত্রী আলো আক্তার পুলিশকে জানান, তার স্বামীকে হত্যার জন্য এক মাস আগে থেকে পরিকল্পনা করেন।

প্রথমে তার কথিত প্্েরমিক তাপস চন্দ্র শীল হত্যার পরিকল্পনা করেন এবং পরবর্তীতে তাপসের সঙ্গী রাশেদ মিয়ার সাথে খুনের পরিকল্পনা করা হয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী ঘটনার দিন ১২ জুন রাতে আলো আক্তার বাড়ীর গাছ হইতে ডাব পাড়িয়া ডাবের পানির সাথে অচেতন হওয়ার ঔষধ মিশাইয়া একটি ষ্ট্রিলের মগে করিয়া ওই পানি তার স্বামী রাজা মিয়াকে কৌশলে পান করায়। এরপর রাজা মিয়া অজ্ঞান হয়ে গেলে আলো আক্তার তার প্রেমিক তাপস চন্দ্র শীল ও রাশেদ মিয়া বসত ঘরের কে তাহাদের ব্যবহৃত গামছা দ্বারা রাজা মিয়ার গলায় পেচাইয়া শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।
rashed
হত্যার পর ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য রাজা মিয়ার লাশটি তারা ঘর থেকে বাহির করিয়া উঠানে নিয়া ধারালো ছুরি দিয়ে রাজা মিয়ার গলার ডান পাশে আঘাত করে রক্তাক্ত করে ফেলে চলে যায়। নিহত রেজাউল করিম রাজা মিয়া গজারিয়া পরিবহন বাস মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া উপজেলার চরচাষী গ্রামের মৃত ছোয়াব আলী বেপারীর পুত্র। রাজা মিয়া দাউদকান্দি পৌর সভার দনি সতানন্দি গ্রামের শশুর বাড়ীতে জমি ক্রয় করে স্ত্রী আলো আক্তার (৩০), দুই সন্তান শান্ত (১৫) ও অনিক (৯) কে নিয়ে বসাবাস করতেন। দাউদকান্দি পৌর সভার সাবেক কাউন্সিলর আঃ আউয়াল তার শুশুর। উল্লেখ গত ১৩ জুন ভোরে পরিবহন নেতা রেজাউল করিম রাজা মিয়ার গলাকাটা মৃতদেহ তার বাড়ীর উঠানে পাওয়া যায়। হত্যার ঘটনায় জড়িত কারো নাম উল্লেখ না করে নিহতের ভাই মোঃ খাজা মিয়া বাদী হয়ে দাউদকান্দি মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১৬ তারিখ-১৪/০৬/১৪ইং ধারা-৩০২/৩৪ দঃ বিঃ।

কুমিল্লার কাগজ

Comments are closed.