মুন্সিগঞ্জেরসহ এ পর্যন্ত ৩০ বাংলাদেশী হাজীর মৃত্যু

hazzপবিত্র হজ পালন করতে এসে সৌদি আরবে এই পর্যন্ত ৩০ জন বাংলাদেশীর মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ২৩ জন মক্কায় এবং সাতজন মদিনায় মারা যান। তাদের মধ্যে ২৪ জন পুরুষ এবং ছয়জন মহিলা হাজি রয়েছেন। হাজীদের বেশির ভাগই হৃদরোগ ও বার্ধক্যজনিত কারণে মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন হজ মিশনের কর্মকর্তারা।

নিহতেরা হলেন- মুন্সিগঞ্জের মোহাম্মাদ আক্তার হুসাইন (৬২), ঢাকা খিলগাঁও-এর ফয়জুল এলাহী (৪৫), ঢাকা সুত্রাপুরের মোহাম্মাদ নুরুদ্দিন আহমেদ (৬৪), কুমিল্লা

মুরাদনগরের আস্মাত আলী (৭২), রংপুর তারাগঞ্জের আজিজুল ইসলাম (৬৫), চট্টগ্রাম বন্দরের শামছুন নাহার (৪৬), বগুড়া শেরপুরের মোহাম্মাদ আব্দুল আজিজ

(৫৮) নরসিংদী রায়পুরার আবুল হাশেম মিয়া (৭০), নোয়াখালী বেগমগঞ্জের মোহাম্মাদ আব্দুল হক (৬৬), ফেনী সদরের মোহাম্মাদ ইয়াকুব (৫৭), চুয়াডাঙ্গার

মুছা. সাহানারা বেগম (৭৭), পাবনার মোহাম্মাদ আলাউদ্দিন (৬১), গাজীপুর কাপাসিয়ার মোহাম্মাদ জামাল উদ্দিন (৪৩), ফেনী ছাগলনাইয়ার দিল আফরোজ

(৬২), চট্টগ্রাম হালিশহরের নাসিমা আক্তার (৩৮), নোয়াখালী সদরের মোহাম্মাদ নুরুল হোসেন (৬১) নোয়খালী চাটখিলের তোফাজ্জল হোসেন (৫৯), রাজশাহী

পবার মোহাম্মাদ শাহ্ জাহান আলি (৭৫), পাবনার চাটমোহরের মোহাম্মাদ আকবার হোসেন (৬২), নরসিংদী শিবপুরের আবুল কাশেম (৬২), চট্টগ্রাম

সাতকানিয়ার আমিন উল্লাহ (৭৯), কুমিল্লা দাউদকান্দির মোহাম্মদ সাদেক (৭৪) সিরাজগঞ্জের মোহাম্মদ ফয়েজ উদ্দিন (৭৪), সিরাজগঞ্জ তাড়াশের মোহাম্মদ

মতিউর রহমান (৬৪), নেত্রকোনা আটপাড়া উপজেলার মোহাম্মদ ইব্রাহিম (৯২), নওগাঁ প

রশার ফিরোজা বেগম (৬৫), ঢাকা খিলক্ষেতের শাহাবুদ্দিন মিয়া (৬৯), পিরোজপুর সদরের শাহজাহান সিকদার (৭১), ফেনী ফুলগাজীর আব্দুস সালাম (৭৭),

চাপাইনবাবগঞ্জ রামচন্দ্রপুরের মাসুদা খাতুন (৮২)।

প্রসঙ্গত, সৌদি আরবে হজ করতে এসে মৃত্যু বরণকারীদের লাশ স্ব-দেশে পাঠানো হয় না। এদের পবিত্র মক্কায় মারা গেলে জান্নাতুল মুয়াল্লায় এবং মদিনায় মারা গেলে জান্নাতুল বাকিতে দাফন করা হয়।

প্রাইমনিউজ

Comments are closed.