লৌহজংয়ের পদ্মার চরে স্কুল বানাচ্ছে জাপান

munshigonjhighschoolএবার জাপানের আর্থিক সহযোগিতায় মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার পদ্মার চরে প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মিত হচ্ছে। পিইউএস (পল্লী উন্নয়ন সংস্থা) নামে জাপানের একটি অলাভজনক সংস্থা এ বিদ্যালয় নির্মাণ করছে।

শুক্রবার সংস্থাটির ভাইস প্রেসিডেন্ট কেইকো আইওয়াশিতা লৌহজংয়ের ঝাউটিয়ার পদ্মার চরে সরজমিনে ঘুরে বিদ্যালয়ের স্থান নির্বাচন করেণ।

বিদ্যালয়টির জন্য জমি দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন সাবেক কোরহাটি বার্তমানে হলদিয়া নিবাসী শেখ মারফত আলী মেম্বারের পুত্র এসএম আল সাম। কেইকো আইওয়াশিতা জানান, বাংলাদেশের ভাগ্যাহত লোকদের জন্য আমরা কাজ করছি। পদ্মার চরের দরিদ্র ছেলে মেয়েদের শিক্ষার জন্য এখানে পর্যাপ্ত স্কুল নেই। ভাগ্যবঞ্চিত এসব লোকজন তাদের ছেলে মেয়েদের শিক্ষার জন্য তেমন কোন সু ব্যবস্থা না থাকায় তারা এগিয়ে যেতে পারছেনা।

আমরা তাদের এগিয়ে নিতে চাই। শিক্ষার আলো যাতে অজো পাড়াগায়ের এই প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌছতে পারে সেই জন্যই আমারা বাংলাদেশের পাহাড়ি জঙ্গল এলাকাসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলে কাজ করছি। তিনি বলেন, আজ শনিবারের মধ্যে বিদ্যালয়টি নির্মাণ ব্যায়ের জন্য প্রায় ১১ লাখ টাকা জাপান থেকে বাংলাদেশে চলে আসবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই বিদ্যালয় নির্মাণ শুরু হবে। পাকা মেঝো আর টিন-কাঠ দিয়ে বিদ্যালয়টি নির্মাণ করা হবে। ডিসেম্বরের মধ্যে বিদ্যালয় নির্মাণ কাজ শেষ করে আগামী জানুয়ারী মাস থেকে বিদ্যালয়টি উদ্বোধন করে শিক্ষা কার্যক্রম চালু করা হবে।

তখন জাপান থেকে একটি প্রতিনিধি দল এসে এ বিদ্যালয়টি উদ্বোধন করবেন। কেইকো বলেন, ইতিমধ্যে সিলেটের দুর্গম অঞ্চলে পিইউএস আরো ৬টি স্কুল নির্মাণ করেছে। ঝাউটিয়ার চরসহ ও ময়মনসিংহের কোশোরগঞ্জে আরো একটি স্কুল নির্মাণের কাজ একযোগে চলবে। এগলো জানুয়ারীতেই শিক্ষা কার্যক্রম চালু করা হবে। তিনি ঝাউটিয়ার পদ্মার চর ঘুবে বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করেন। প্রত্যন্ত অঞ্চল হলেও এর প্রাকৃতির সুন্দর্য তাকে আবিভূত করেছে । এবং এখানকার লোকজনের ব্যবহারে তিনি মুগ্ধ হয়েছেন।

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ

Comments are closed.