পিনাক মালিক ও ছেলেকে কারাফটকে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি

pinakOwnersপদ্মায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ পিনাক-৬ এর মালিক আবু বক্কর সিদ্দিক কালু ও তার ছেলে ওমর ফারুক লিমনের জামিন আবেদন নাকচ করে তাদের কারাফটকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তদন্ত কমিটিকে অনুমতি দিয়েছে নৌ আদালত। মুন্সীগঞ্জের কারাধ্যক্ষ তরিকুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার নৌ আদালতের বিচারক বিশেষ মহানগর হাকিম মো. কামাল হোসেন শিকদার এই আদেশ দেন।

আবু বক্কর ও লিমনকে সকালে মুন্সীগঞ্জ কারাগার থেকে ঢাকার মতিঝিলে বিআইডব্লিউটিএ ভবনের অষ্টম তলায় সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের কার্যালয়ে নৌ আদালতে হাজির করা হয়। আদালতের কার্যক্রম শেষে বেলা দেড়টায় পুলিশ পাহারায় তাদের আবার ফিরিয়ে নেয়া হয় মুন্সীগঞ্জ কারাগারে।

লঞ্চডুবির ঘটনায় গঠিত সাত সদস্যের কমিটির সদস্য সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম জানান, তাদের দায়িত্বে মেয়াদ রোববার পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।
pinakOwners
তিনি বলেন, “পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন দাখিলের জন্য এ দুই আসমিকে জিজ্ঞাসাবাদ জরুরি। শনিবারের মধ্যে পিনাক- ৬ এর মালিক ও তার ছেলেকে কারাফটকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

তদন্ত কমিটির এ সদস্য বলেন, লঞ্চটি ডিজাইনার, রেকর্ডভুক্ত মালিক ও দুই লঞ্চঘাটের ইজারাদারসহ কয়েকজন সাক্ষীকে নোটিস দেয়ার পরও নির্ধারিত সময়ে তারা তদন্ত কমিটিতে আসেননি। তদন্ত প্রতিবেদনে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ থাকবে।

গত ৪ অগাস্ট কাওড়াকান্দি থেকে মাওয়া আসার পথে দুই শতাধিক যাত্রী নিয়ে পদ্মায় ডুবে যায় পিনাক-৬ লঞ্চটি। দুর্ঘটনার পর এ পর্যন্ত ৪৯ জন যাত্রীর লাশ উদ্ধার হয়েছে। সরকারি হিসাবে এখনও নিখোঁজ রয়েছেন ৬১ যাত্রী।

দুর্ঘটনার পরদিন ‘অধিক মুনাফার আশায় অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই, বেপরোয়া লঞ্চ চালনা ও অবহেলাজনিত নরহত্যার’ অভিযোগে ছয় জনকে আসামি করে লৌহজং থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে বিআইডব্লিউটিএ। মামলায় চার আসামি এখনও পলাতক।

এছাড়া ৪ অগাস্ট নৌ আদালতে পাঁচ জনের বিরুদ্ধে এই মামলা করে সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তর।

বিডিনিউজ

Comments are closed.