গজারিয়া থানার ওসি ফেরদৌস হাসানের গ্রেফতার বানিজ্য

gazaria thanaগজারিয়া থানার ওসি ফেরদৌস হাসানের গ্রেফতার বানিজ্য চরমে। তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী পুলিশ সুপারের নির্দেশ উপেক্ষা করে কেবল চাহিদামত ঘুষ না দেয়ায় ৯ নিরীহ নিরপরাধ ব্যক্তিকে আটক করে কোর্টে চালান দিলেন মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফেরদৌস হাসান।

এ নিয়ে এলাকায় ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। বাড়ি গোপালগঞ্জে হওয়ায় তার দাপটে সর্বদা তটস’ থাকেন এলাকাবাসী। গোপালগঞ্জের লোক হওয়ায় তিনি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা থেকে শুরু করে কাউকে তোয়াক্কা করছেন না। বরং মাদক ব্যবসায়ী ও অপরাধী চক্রের সঙ্গে স্বল্প সময়ে তার গভীর সখ্যতা গড়ে উঠেছে বলে সূত্র জানায়। এ ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী জানান, গত সোমবার গজারিয়ার গোয়ালগাও এলাকায় বিএনপির দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে প্রায় ১০ জন আহত হয়। এ ঘটনায় কোন মামলা হয়নি। মামলা না হলেও ঘটনার পরদিন করিৎকর্মা ওসি ফেরদৌস হাসান ওই গ্রামে অভিযান চালিয়ে ৯ জন গ্রামবাসীকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা বেশীর ভাগ নিরীহ নিরপরাধ এবং ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত নয় বলে এলাকাবাসী জানান। আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়ার পর গ্রেফতারকৃতদের স্বজনদের কাছ থেকে মোটা অংকের ঘুষ দাবি করে ওসি।

এদের মধ্যে আটককৃত ৪ জন ওসির চাহিদা মত টাকা দেয়ায় তাদেরকে থানা থেকে ছেড়ে দেয়া হয়। টাকা না দেয়ায় আটক অপর ৫ জনকে গতকাল মঙ্গলবার আদালতে প্রেরণ করা হয়। এর আগে এলাকাবাসীর অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে যারা ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয় তাদেরকে ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেন মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার। কিন’ ঘূষের টাকা না দেয়ায় ক্ষুব্ধ হন ওসি ফেরদৌস হাসান। তিনি এসপির নির্দেশ উপেক্ষা করে আদালতে পাঠান।

এলাকাবাসী জানান, প্রায় তিন মাস আগে মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন ফেরদৌস হাসান। এ অল্প কয়েক দিনেই তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন সাধারণ মানুষ। তিনি যোগ দানের পর এলাকায় নানা অপরাধ প্রবনতা বাড়তে থাকে।

সূত্র জানায়, ফেরদৌস হাসানের সঙ্গে ইতিমধ্যেই মাদক ব্যবসায়ীদের গভীর সখ্যতা গড়ে উঠে। মাসোয়ারার বিনিময়ে তিনি মাদক ব্যবসায় সহায়তা করেন বলে এলাকাবাসী জানান। তিনি এ থানায় জয়েন্ট করার পর থেকে এলাকাটি মাদকের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে। জলদস্যুদের সঙ্গে তার নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে। তিনি থানার মালখানা থেকে ডাকাতদের গোপনে আগ্নেয়াস্ত্র সহ ধারালো অস্ত্র সরবরাহ করেন বলে সূত্র জানান। এর বিনিময়ে ডাকাতি কৃত মালামালের একটি অংশ ভাগ পান তিনি।

বি-বার্তা