দুই হাতে স্ত্রী সন্তানদের ধরে রাখতে পারলেন না সাদিক

pinaksadikপদ্মায় লঞ্চ ডুবি
পিনাক-৬ লঞ্চটি ডুবার উপক্রম দেখে সাদিক তার দুই শিশু ছেলেকে দু হাতে শক্ত করে ধরেছিলেন। আর স্ত্রীকে বলেছিলেন তার প্যান্টের পকেটে যেন শক্ত করে ধরে রাখে।

একটি বেসরকারি কোম্পানির উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদিক এভাবেই স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে বাঁচতে চেয়েছিলেন। কিন্তু নির্মমভাবে লঞ্চ ডুবে যাওয়ায় তার হাত থেকে ছুটে যায় দুই ছেলে আরাফ (৮) ও আনাম (৪)। স্ত্রী শেফালীও আর তাকে ধরে রাখেন নি!

ভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া সাদিক নিজেকে অপরাধী দাবি করে মঙ্গলবার সকালেও মাওয়া ঘাটে স্ত্রী ও ছেলেকে পাওয়ার আশায় বিলাপ করে অঝোরে কাঁদছেন।
pinaksadik
এ সময় তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলতে থাকেন, আমি এতো বড় পাষণ্ড! আমি দুই হাতে আমার শিশুদের জলাঞ্জলি দিলাম। স্ত্রীকেও নদীতে রেখে এলাম। আমার কী আছে? কী নিয়ে বাঁচবো! আমার সব যে শেষ হয়ে গেল!

ফরিদপুরের সালতা উপজেলার গুট্টি গ্রামের ছেলে সাদিক ঢাকার ধানমণ্ডিতে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে তিনি গ্রামের বাড়িতে ঈদ উদযাপন করে ঢাকায় ফিরছিলেন।

সাদিকের চাচাতো ভাই ইনাম হোসেন সুজন বাংলানিউজকে বলেন, সাদিকের বড় ছেলে আরাফ একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পড়াশুনা করে। ছেলের পড়ালেখা ও নিজের চাকরির ছুটি শেষ হওয়ায় লঞ্চে মাওয়া হয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছিলেন সাদিক।

তিনি বলেন, সাদিক অনেক চেষ্টা করেছেন স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে বাঁচতে। এক সময় তিনি অজ্ঞান হয়ে ভেসে যান। পরে উদ্ধারকারীরা তাকে উদ্ধার করে তীরে নিয়ে আসে। সাদিকের একটি সুখের সংসার মুহ‍ূর্তের মধ্যে শেষ হয়ে গেলো।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর